শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

আর কয়েক ঘণ্টা বাদেই ব্রাজিল ও সার্বিয়ার খেলা, ব্রাজিলের উন্মাদনায় নামখানা ব্লক 

News Sundarban.com :
নভেম্বর ২৪, ২০২২
news-image

ঝোটন রয়, দক্ষিণ ২৪ পরগনা:

ব্রাজিল ও সার্বিয়ার খেলা নিয়ে উন্মাদনায় ভাসছে নামখানা ব্লক। প্রত্যন্ত সুন্দরবনের ছোট্ট একটি দ্বীপ নামখানা ব্লক। যে ব্লকে প্রতি বছর দিনরাত এক করে কোনও না কোনও টুর্নামেন্ট লেগেই থাকে। আর কয়েক ঘন্টা বাদেই ব্রাজিল ও সার্বিয়ার ফুটবল টুর্নামেন্ট। বিশেষ করে বলতে গেলে কৃষিকাজ এখানে প্রধান জীবিকা অর্থাৎ পেশা হলেও খেলাধুলো এখানকার মানুষদের আরেকটি নেশা। যে নেশাতে বুঁদ হয়ে আছে নামখানার মানুষজন। সে আট থেকে আশি সে বয়সেই হোকনা কেন খেলতে ভালোবাসেন ফুটবল। তার ওপর আবার কাতারে চলছে ফুটবল বিশ্বকাপ। সন্ধ্যে হলেই চায়ের দোকান, ক্লাব এমনকি পাড়ার অলিগলি থেকে শুরু করে প্রতিটি বাড়িতে বাড়িতে ক্রীড়া প্রেমীদের কাতার ফুটবল বিশ্বকাপ দেখার উচ্ছ্বাস রয়েছে এই ব্লকে। অন্যান্য দলের সমর্থক থাকলেও নামখানা ব্লকে ব্রাজিল দলের সমর্থকদের উচ্ছাসও কোনো অংশে কম নয়। সুন্দরবনের এই ব্লকেই অনেক ফুটবল খেলোয়াড় রয়েছে যারা নামখানা ব্লক ছেড়ে এমনকি নিজের জেলা ছাড়িয়েও অন্য জেলাতে টাকার বিনিময়ে খেলতে যায়। শুধু নিজেদের সত্তাকে বিকশিত করার জন্য একটা প্ল্যাটফর্ম -ই তাঁদের কাছে যথেষ্ট ।

নামখানা ব্লকের রাজনগর বিশ্বম্ভর হাই স্কুলের শিক্ষক অর্ধেন্দু ঘোড়ুই বলেন, আমি সবসময়ের জন্য ব্রাজিলের সাপোর্টার রয়েছি। সে হারুক বা জিতুক না কেন। আমি ছোটবেলা থেকেই জানছি ব্রাজিল, ব্রাজিল আর্জেন্টিনা, আর্জেন্টিনা। ১৯৫৯ থেকে ব্রাজিল ফুটবল খেলছে। ফুটবল প্লেয়ার পেলের কথা জানে না বিশ্বের কি কেউ আছে। সার্বিয়া তো এইতো সেদিন। যেখানে নেইমার, রাফিনহা, এর মতো খেলোয়াড় রয়েছে সেই দলের প্রতি আগ্রহ তো থাকবেই বরাবর। আমাদের জেনারেশন টু জেনারেশন এই ব্রাজিল নামটার সঙ্গে খুবই পরিচিত। ব্রাজিল মানেই তার একটা খেলার ছন্দ রয়েছে। কাপ আসুক আর না আসুক ব্রাজিলের খেলা দেখার মজাই আলাদা।

নামখানা ব্লকের দক্ষিণ চন্দনপিড়ি গ্রামের বাসিন্দা দেবব্রত বিজলী কর্মসূত্রে কাতারে রয়েছেন তিনি জানান, ‘আমি ছোটবেলা থেকেই ব্রাজিলের সমর্থক। টিভিতে নেইমারের খেলা দেখেছি। খবরের কাগজেও ব্রাজিলের গতবারের বিশ্বকাপ পড়েছি। আজ আমি কাতারের ক্যাপ কোম্পানিতে কাজ করি। এত কাছাকাছি রয়েছি তা খেলাতো দেখতেই হয়। মঙ্গলবার এর আর্জেন্টিনার হার মেনে নেওয়া যাচ্ছে না। এছাড়াও আমার আরেকটি সমর্থন দল রয়েছে ব্রাজিল। খুব চেষ্টা চলছে টিকিট পাওয়ার জন্য। দেখা যাক ভাগ্যে এই দেশে নেইমারের খেলাটা নিজের চোখে দেখা যায় কিনা।’

অন্যদিকে নামখানা ব্লকের সঞ্জয় ল্যায়া যিনি 2017 সুন্দরবন কাপ চ্যাম্পিয়ন। এ রাজ্যের গণ্ডি পেরিয়ে অল ইন্ডিয়া টুর্নামেন্ট খেলতে গিয়েছেন হায়দ্রাবাদ, মুম্বাই। তার নির্লস পরিশ্রমের মাধ্যমে পেয়েছেন বহু প্রাইজ। তিনি বলেন, এখন 32 টা দেশের খেলা চলছে। একটা সুন্দর মুহূর্ত যা বলার কোন অবকাশ নেই। প্রত্যেকদিন আমি খেলা দেখছি। আমি ব্রাজিলের সাপোর্টার। আমার মনে হচ্ছে ব্রাজিল সার্বিয়ার কাছে 3-0 গোলে জয়ী হবে।

এই ব্লকের বাসিন্দা পুলকেশ কামিলা বলেন, আমি সার্বিয়াকে সার্পোট করব। খেলাতে হারজিত রয়েছে। নতুন দলদের সাপোর্ট না করলে তাদের মধ্যে স্পিরিট আসবে কি করে।

এছাড়া নামখানা ব্লকের নিউ গৌরাঙ্গ স্পোর্টিং ক্লাবের ক্রীড়া সম্পাদক সুকান্ত মন্ডল বলেন, ‘আমাদের ক্লাব সাধারণত ফুটবল বেসিকের ক্লাব। জেনারেশন কত দিক দিয়ে ফুটবলটাকেই ভালবেসেছে। ব্রাজিল এবং আর্জেন্টিনা ফুটবলের সৃষ্টিকর্তা। তাই প্রথম থেকেই আমাদের এই আর্জেন্টিনার এবং ব্রাজিলের প্রতি ভালোবাসা থেকেই গেছে। ব্রাজিলের খেলোয়াড়দের বিভিন্ন আদব কায়দা ও খেলার ছক রয়েছে। এই গুলো আমাদের ভালো লাগে। ক্লাবের ছেলেরা এরজন্য ব্রাজিলকে ভালো বাসে। আমাদের ব্রাজিলের জার্সি আমাদের কাছে একটা সিম্বল।’

নামখানা ব্লকের এই নিউ গৌরাঙ্গ স্পোর্টিং ক্লাবের 135  সদস্য জন রয়েছেন। যাদের ফুটবল-ই জ্ঞান ফুটবল-ই ধ্যান। ফুটবলই আশা ভরসা। তাই প্রতিবছর একই মাঠে দুটো করে ফুটবল খেলা হয়। যেখানে শুধু দেশীয় খেলোয়াড় নয়, নাইজেরিয়া থেকেও বহু খেলোয়ার আসেন এই ফুটবল খেলতে।