শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ক্যানিংয়ে বধুকে মেরে ঝুলিয়ে দেওয়ার অভিযোগ শ্বশুর বাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে, তদন্তে পুলিশ

News Sundarban.com :
নভেম্বর ১৪, ২০২২
news-image

নিজস্ব প্রতিনিধি, দক্ষিণ ২৪ পরগনা: গৃহবধুকে মেরে ঝুলিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠলো শ্বশুর বাড়ির লোকজনদের বিরুদ্ধে। মৃত বধুর নাম তানজিলা জমাদার (৪১)।ঘটনাটি ঘটেছে রবিরার ক্যানিং থানার অন্তর্গত ইটখোলা গ্রামপঞ্চায়েতের ডাবু গড়খালি গ্রামে। ঘটনার পর মৃত বধুর শ্বশুর বাড়ির লোকজন বাড়িছেড়ে পালিয়ে যায়।এই ঘটনার অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তির দাবী জানিয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন মৃত বধুর বাপের বাড়ির লোকজন।

সুত্রে খবর, প্রায় ১৯ বছর আগে গড়খালি গ্রামের মহিনউদ্দিন জমাদারের সাথে বিয়ে হয় বাসন্তী থানার অন্তর্গত ফুলমালঞ্চ গ্রাম পঞ্চায়েতের চাতরাখালি গ্রামের তানজিলার সাথে।দম্পতির এক পুত্র সন্তান রয়েছে। সে কাজের জন্য ভিন রাজ্যে রয়েছে। বাপের বাড়ির অভিযোগ, বিয়ের পর থেকে ওই বধুর ওপর শারীরিক ও মানসিক অত্যাচার করতো শ্বশুর বাড়ীর লোকজন। স্বামী মহিনুদ্দিন জমাদার ও তার বাড়ির লোকজন ওই বধুকে বাপের বাড়ি থেকে যৌতুক ও টাকা পয়সা আনার জন্যও প্রায় চাপ দিত। মাঝে মধ্যে অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে ওই বধু বাপের বাড়ি থেকে টাকা পয়সা এনে স্বামীর হাতে তুলে দিতেন।টাকা শেষ হলেই ফের চলত লাগামছাড়া অত্যাচার। মৃত বধুর দাদা হাসানুর সরদার ও জাহাঙ্গীর বৈদ্য’দের দাবী ‘রবিবার জয়নগর থানার তিলপি এলাকায় একটি অনুষ্ঠান বাড়িতে ছিলেন তাঁরা। সেই সময় গড়খালি থেকে এক মহিলা তাদেরকে ফোন করে জানায় তানজিলার হার্ট অ্যাটাক হয়েছে। সেই মতো তড়িঘড়ি তাঁরা গড়খালি গ্রামে হাজীর হয়। সেখানে গিয়ে দেখেন ওই বধু ঘরের বারান্দায় মৃত অবস্থায় পড়ে রয়েছে।

স্থানীয় মানুষজন ওই বধুকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখে তাকে নামায়। তার গলা ও শরীরে একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। স্থানীয়রা জড়ো হলেও কিন্তু বাড়িতে স্বামী, শাশুড়ি ছিলেন না। ঘটনার পরিস্থিতি ভালো নয় বুঝে স্থানিয়রা তড়িঘড়ি করে ক্যানিং থানার পুলিশ কে খবর দেয়। ক্যানিং থানার পুলিশ ওই বধুকে রবিবার রাতে উদ্ধার করে নিয়ে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে গেলে চিকিৎসকরা মৃত বলে ঘোষনা করেন। মৃত দেহটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তে পাঠিয়ে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ক্যানিং থানার পুলিশ।