মঙ্গলবার, ২৭শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আর্থিক অনটনের রয়েছে বাঁকুড়ার কুটিরশিল্পের সাথে জড়িত পরিবার গুলি

News Sundarban.com :
জুন ১৬, ২০২১
news-image

মৌসুমী চ্যাটার্জী, বাঁকুড়া:

বাঁকুড়া বড়জোড়া ব্লকের গদারডিহি গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত জগন্নাথপুর গ্রাম ৷ মূলত গ্রামের মানুষ কৃষিজীবী এবং শোলার শিল্প কর্মের উপর নির্ভর ৷ বিগত প্রায় দেড় বছর কাল করোনা আবহে লকডাউন এর বিধি নিষেধের ফলে কুটিরশিল্পের সাথে জড়িত পরিবার গুলি অনেকটাই আর্থিক অনটনের ভুগছেন ৷

বিভিন্ন পূজা-পার্বণ ছাড়াও তারা যে পারিবারিক অনুষ্ঠানগুলোতে শোলার কাজ করতেন যেমন বিবাহ, অন্নপ্রাশন, বিভিন্ন দেবদেবীর ডাকের কাজ,জন্মদিন ইত্যাদি সেরকমভাবে না হওয়াতে তাদের কাজ একেবারে বন্ধ হতে বসেছে ৷ এছাড়াও আন্তঃরাজ্য এবং বহিররাজ্যে যে অর্ডার পেতেন সেগুলিও একেবারে বন্ধ হয়ে গিয়েছে ৷ এমতাবস্থায় পরিবারে যারা এই শোলাশিল্পকর্মে যুক্ত ছিলেন তারা অনেকেই হাটে বাজারে সবজি বেচে দিন মজুর খেটে দিন পার করছেন ৷ শোলার তৈরি বিভিন্ন ডাকের সাজ সব কিছু বিক্রি বন্ধ ৷

জগন্নাথপুর গ্রামেরই এক শিল্পী আনন্দ মালাকার, তার বৃদ্ধ বাবা-মা, স্ত্রী-সন্তান নিয়ে সংসার, সকলেই উক্ত শোলার কাজে হাত করতেন ৷ সন্তানেরা পড়াশোনা করতো স্কুলে যেত সংসার একটা খুশির হাওয়া বইতো ৷ আজ ওসব অধরা ৷ পিতার সামর্থ্য নেই অনলাইনে পড়াশোনা করার জন্য একটি মোবাইল কিনে দেওয়ার ৷ সরকার অনেক কিছুর দিকেই দৃষ্টিপাত করে ৷ তবুও সরকারের কাছে অনুরোধ যদি সরকার একবার একটুখানি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয় ৷ তাহলে তাদের সংসারেও আবার খুশির নির্মল হওয়াটা হয়তো বইতো