বুধবার, ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সাধারণ মানুষের সঙ্গে একই লাইনে দাঁড়িয়ে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড সংগ্রহ করলেন মুখ্যমন্ত্রী

News Sundarban.com :
জানুয়ারি ৫, ২০২১
news-image

নিউজ সুন্দরবন ডেস্ক: সোমবারই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি জানিয়েছিলেন নিজের নামে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড নেবেন। তিনি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই মতোই মঙ্গলবার সাধারণ মানুষের সঙ্গে একই লাইনে দাঁড়িয়ে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড সংগ্রহ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিন সকালে সাড়ে ১১টা নাগাদ হরিশ মুখার্জি স্ট্রিটের জয়হিন্দ ভবনে উপস্থিত হন মুখ্যমন্ত্রী। ছিলেন রাজ্যের পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা, মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়, পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম-সহ দলের একাধিক নেতা-কর্মীরা। দেখা যায়, ৭৩ নম্বর ওয়ার্ডের এই স্বাস্থ্যসাথী কার্ড বিতরণ কেন্দ্রে সাধারণ মানুষের ভিড়ে গিয়েই দাঁড়িয়ে পড়েন মুখ্যমন্ত্রী। কার্ড সংগ্রহের লাইনে তাঁর সামনে ছিলেন তিনজন। লাইনে অপেক্ষার সঙ্গে সঙ্গে অন্যান্যরা কার্ড ঠিক মতো পাচ্ছেন কি না, তার তদারকিও করেন তিনি। এরপর কার্ড নেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় প্রক্রিয়া, যেমন ছবি তোলা, থাম্ব ইমপ্রেশন দেওয়া ইত্যাদি সারেন। তারপরই হাতে পান স্বাস্থ্যসাথী কার্ড। সরকারি তথ্য বলছে, রাজ্যের সাড়ে সাত কোটিরও বেশি মানুষ ইতিমধ্যে স্বাস্থ্যসাথী পরিষেবার আওতায় এসেছেন। স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত আধিকারিকদের বক্তব্য, রাজ্যের প্রতিটি পরিবারকে বছরে পাঁচ লক্ষ টাকার বিমার আওতায়  আনা হয়েছে।সরকারি মতে, শুধুমাত্র সরকারি হাসপাতাল নয়, রাজ্যের যে কোনও বেসরকারি হাসপাতালেও চিকিৎসা করানোর সুযোগ মিলবে।

পরিবারের সকলেই, এমনকী মহিলা সদস্যের বাপেরবাড়ি ও শ্বশুরবাড়ির সব সদস্যই এর আওতায় আসবেন। তবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, ২০২১ ভোটের লড়াইয়ে জোর টেক্কা দিতে চলেছে যুযুধান দুই দল তৃণমূল ও বিজেপির মধ্যে। কাজের খতিয়ান নিয়ে ইতিমধ্যে জনতার দরবারে নেমে পড়েছেন দুই দলের নেতা-কর্মীরা। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বরাবরই কাজেরহিসেব নিয়েই সাধারণের কাছে যেতে চেয়েছেন।সেদিক থেকে দেখতে গেলে মমতার একাধিক প্রকল্পের মধ্যে এগিয়ে আছে স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্প।স্বাস্থ্যসাথী কার্ডের জন্য রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে মানুষের যে পরিমাণ ভিড় ও উতসাহ দেখা গেছে তাতে বোঝাই গেছে ব্যপক সাড়া ফেলেছে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড। সেক্ষেত্রে ২০২১ এর ভোটে ট্রাম্র কার্ড হতে পারে মমতার স্বাস্থ্যসাথী কার্ড।