সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

অ্যাম্বুলেন্স জট কাটাতে হরেক দাওয়াই রাজ্যের

News Sundarban.com :
আগস্ট ৪, ২০২০
news-image

নিউজ সুন্দরবন ডেস্ক:  মহামারীর আবহে হাসপাতালের বেড জটিলতার থেকেও বড় হয়ে উঠেছে অ্যাম্বুলেন্স ভোগান্তি। করোনা রোগী এমনকি সন্দেহভাজন রোগীদেরও হাসপাতালে নিয়ে যেতে বেঁকে বসছেন অ্যাম্বুলেন্স চালকেরা। কোথাও বা লাগাম ছাড়া ভাড়া হাঁকার অভিয়োগ উঠছে।

তাই কলকাতা-সহ সারা রাজ্যে এই অ্যাম্বুলেন্স ভোগান্তিতে দাঁড়ি টানতে বিভি্ন্ন পদক্ষেপের কথা জানিয়েছে রাজ্য । মঙ্গলবার কলকাতা পুরসভায় স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় কলকাতা পুরসভার প্রশাসকমন্ডলীর সদস্য অতীন ঘোষ, কমিশনার বিনোদ কুমার, কলকাতা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার জাভেদ শামিম-সহ একাধিক উচ্চপদস্থ কর্তারা এই বিষয় নিয়ে বৈঠক করেন।বৈঠকের পরে স্বারাষ্ট্র সচিব বলেন, বিষয়টি নিয়ে স্বাস্থ্য ভবন খুব শীঘ্রই বেসরকারি হাসপাতাল ও নন কোভিড হসপিটালগুলির সঙ্গে আলোচনায় বসবে। নন কোভিড পেশেন্টের কোভিড পজিটিভ হলে সংশ্লিষ্ট নার্সিংহোম বা হাসপাতালকেই স্বাস্থ্য ভবন মারফত কোভিড হাসপাতালে সিট বুকিং ও অ্যাম্বুলেন্স এর জন্য যোগাযোগ করতে হবে। স্বাস্থ্য দফতরের নির্দিষ্ট নম্বর (১৮০০-৩১৩-৪৪৪-২২২ ) এবং কলকাতা পুরসভার কন্ট্রোলরুমের (০৩৩-২২৮৬ ১২১২/১৩১৩/১৪১৪) নম্বরে যোগাযোগ করে সুনিয়ন্ত্রিত পথে গেলে অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা সঠিক পাওয়া যাবে বলে তিনি আশাপ্রকাশ করেন ।একইসঙ্গে অ্যাম্বুলেন্সের ভাড়া বেঁধে দেওয়ার কথাও ভাবা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্র সচিব । অ্যাম্বুলেন্সের সংখ্যা বাড়িয়ে সমস্যার সমাধান করার কথাও ভাবা হচ্ছে । বর্তমানে স্বাস্থ্য ভবনের ১১০টি অ্যাম্বুলেন্স এবং কলকাতা পুরসভার ৩০ টিরও বেশী অ্যাম্বুলেন্স দিনরাত কাজ করছে বলেও তিনি জানিয়েছেন।

পাশাপাশি অ্যাম্বুলেন্সের ওপর নজরদারী চালাতে জিপিএস বা গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম বসানো হবে বলেও এদিনের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ফলে কন্ট্রোল রুম থেকেই
অ্যাম্বুলেন্সের গতিবিধির ওপর নজর রাখা যাবে । আরও বেশি করে অ্যাম্বুল্যান্সকে সরকারি পরিষেবায় নিয়ে আসারও প্রস্তাব নেওয়া হয়েছে। সেই লক্ষ্যে আন্তঃরাজ্য পরিষেবা প্রদানকারী বেসরকারি অ্যাম্বুলেন্সকে আরও বেশি করে সরকারি ছত্রছায়ায় নিয়ে আসা হবে। এর জন্য ইতিমধ্যেই কলকাতা পুরনিগম সহ রাজ্যের সব পুরসভাগুলিকে কাজ শুরু করতে বলা হয়েছে। কোথায় কোন বেসরকারি সংস্থা অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা দিচ্ছে তা দেখতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে পুরসভাকে। দ্রুত এই সব অ্যাম্বুলেন্সকে সরকারি ছত্রছায়া আনা যায় সংশ্লিষ্ট পুরসভাকেই সে বিষয়ে উদ্যোগী হতে বলা হয়েছে।-ফাইল চিত্র