বৃহস্পতিবার, ৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

 লোকসভা নির্বাচনের আগে দেশের তিন রাজ্যে ক্ষমতা হারানোর পর এবার ফের লড়াইয়ের সামনে বিজেপি

News Sundarban.com :
অক্টোবর ২০, ২০১৯
news-image

লোকসভা নির্বাচনের আগে দেশের তিন রাজ্যে ক্ষমতা হারানোর পর এবার ফের লড়াইয়ের সামনে বিজেপি। সোমবার বিধানসভা নির্বাচনের ভোট নেওয়া হচ্ছে মহারাষ্ট্র ও হরিয়ানায়। এছাড়াও উপনির্বাচনে ভোট নেওয়া হচ্ছে পঞ্জাব, রাজস্থান, হিমাচলপ্রদেশ, গুজরাট, কেরল-সহ দেশের ১৮ রাজ্যের ৬৪ আসনে।

হরিয়ানা ও মহারাষ্ট্রে বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি যেভাবে জেরাল প্রচার করতে পেরেছে তার ধারেকাছে যেতে পারেনি কংগ্রেস। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী খোদ মহারাষ্ট্র ও হরিয়ানা চষে বেরিয়েছেন। অন্যদিকে, মহারাষ্ট্রে মনোযোগ দিয়েছেন অমিত শাহ। এবার ভোটের প্রচারে বিজেপির হাতে রয়েছে ৩৭০ ধারা বিলোপের মতো ইস্যু।

মহারাষ্ট্রে ২৮৮ আসনের বিধানসভায় বিজেপি এবার লড়াই করছে ১৫০ আসনে। অন্যদিকে, বিজেপি শরিক শিবসেনা লড়াই করছে ১২৪ আসনে। বাকী আসনে লড়াই করছে বিজেপির অন্যান্য শরিকরা। অন্যদিকে, এনসিপিকে সঙ্গে নিয়ে লড়াইয়ে নেমেছে কংগ্রেস। দেবেন্দ্র ফড়নোবিশ, আদিত্য ঠাকরেরা একধিক রোড শো করে দাপিয়ে বেড়িয়েছে মরাঠা মুলুকে। বিজেপির গোটা প্রচারের বেশিরভাগটাই জুড়ে ছিল কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বিলোপ।

অন্যদিকে, সোমবার হরিয়ানার ৯০ আসনে ভোট নেওয়া হচ্ছে। সাধারণভাবে এই রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে প্রধান ইস্যুই হয় রাজ্যের সমস্যা। তবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আপ্রাণ চেষ্টা করেছেন ৩৭০ ধারা ও সার্জিক্যাল স্চ্রাইকের ওপরে ভিত্তি করে নির্বচনে লড়াই করতে। পাশাপাশি নির্বাচনের প্রচারে প্রধানমন্ত্রী সাফ জানিয়েছেন, ভারতের নদীগুলি দিয়ে যে জল পাকিস্তানে বয়ে যাচ্ছে তা তিনি হরিয়ানার চাষিদের দেবেন। এর জন্য সাড়ে তিন লাখ কোটি টাকা খরচ করা হবে।

মহারাষ্ট্র, হরিয়ানা বিধানসভা নির্বাচনের পাশাপাশি সোমবার দেশের ১৮ রাজ্যের ৬৪ বিধানসভা ও ১ লোকসভা আসনে উপনির্বাচনে ভোট নেওয়া হবে। উপনির্বাচন হবে পঞ্জাবে ৪ বিধানসভা আসনে। এগুলি হল, জালালাবাদ, ফাগওয়ারা, মুকেরিয়ান, ডাখা। রাজস্থানের ২ আসনেও ভোট নেওয়া হবে। এগুলি হল মান্ডাওয়া ও খিনসার।

উপনির্বাচনের ভোট নেওয়া হবে হিমাচল প্রদেশের পাচাদ ও ধর্মশালা বিধানসভা আসনে। গুজরাটের ৬ আসনে ভোট নেওয়া হবে। এগুলি হল, থারাদ, রাধানপুর, খেরালু, বায়াদ, আমরাইওয়াদি ও লুনাওয়ালা। এছাড়াও রয়েছে আরও ১৪ রাজ্যে।