শুক্রবার, ২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

যান চলাচলে আসতে চলেছে আমূল পরিবর্তন

News Sundarban.com :
জুলাই ২৬, ২০১৮
news-image

মোটর ভেহিকল সংশোধনি বিলের ফলে যান চলাচলে আসতে চলেছে আমূল পরিবর্তন ৷ যদিও রাজ্যসভায় একাধিক বিরোধিদের বিরোধিতার মুখে পড়তে হচ্ছে এই বিলকে ৷ এই বিলের ফলে যান চলাচলে রাজ্য সরকারগুলির নিয়ন্ত্রণ অনেক কমবে, তাই এই বিরোধিতা বলে মত বিশেষজ্ঞদের ৷ ট্রাফিক ব্যবস্থা সুরক্ষিত করতে এই নতুন আইন বদ্ধপরিকর ৷
নতুন আইনে ড্রাইভিং লাইসেন্স ও যান নথিভুক্ত করার ক্ষেত্রে আধার কার্ড আবশ্যক ৷
পথ দুর্ঘটনায় মৃত্যুর ক্ষেত্রে সরকারি ক্ষতিপূরণের অঙ্ক ২ লক্ষ করা হয়েছে, যা আগে ছিল ২৫ হাজার ৷ যে গাড়িতে এই ঘটনা ঘটবে, সেই গাড়ির রেজিস্টেশন বাতিল হতে পরে এবং শাস্তি পেতে পাবে নাবালকরা ৷ মদ খেয়ে গাড়ি চালানোর জরিমানা ২ হাজার থেকে বাড়িয়ে ১০ হাজার করা হয়েছে ৷ বেপরোয়া গাড়ি চালানোর ক্ষেত্রে জরিমানা ১ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫ হাজার টাকা করা হয়েছে ৷ পথ দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে ৬ মাসের মধ্যে ক্ষতিপূরণের আবেদন জানাতে হবে ৷
ড্রাইভিং লাইসেন্স একমাস নয়, এক বছরের মধ্যেই নবীকরণ করলেই হবে ৷
থার্ড পার্টি ইনসিওরেন্সের ক্ষেত্রে বাড়ানো হল টাকার অঙ্ক ৷ লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালালে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা হতে পারে ৷ দুর্ঘটনায় আহতদের যারা সাহায্য করবেন, তাদের কোন রকম হয়রানি করা হবে না ৷ তারা না চাইলে তাদের নাম প্রকাশ্য আনা হবে না ৷ নিবালকরা ট্রাফিক আইন ভাঙলে, তার খেশারত দিতে হবে অভিভাবকদের বা গাড়ি মালিককে ৷ তবে তাদের সম্পূর্ণ অজান্তে যদি এই ঘটনা ঘটে বা তারা যদি এই ট্রাফিক আইন ভাঙার থেকে আটকানোর চেষ্টা করে থাকেন, তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ দায়ের করা হবে না ৷ বেশি গতিতে গাড়ি চালালে জরিমানার অঙ্ক ৪০০ থেকে বেড়ে ১ হাজার বা ২ হাজার টাকা হতে পারে ৷ সিটবেল্ট না পরলে দিতে হতে পারে ১ হাজার টাকা ৷ গাড়ি চালাতে চালাতে মোবাইলে কথা বললে ৫ হাজার টাকা জরিমানা হতে পারে ৷
বিভিন্ন ধরণের অ্যাক্সিডেন্টেই মিলবে ইনসিওরেন্সের সুবিধা ৷
বিশেষভাবে সক্ষম মানুষদের জন্য বিশেষভাবে তৈরি করতে হবে গাড়ি ৷
তবে যদি খারাপ রাস্তার ফলে দুর্ঘটনা ঘটে তাহলে রাস্তা তৈরির দায়িত্বে যারা ছিলেন তাদের ওপরই দায়িত্ব বর্তাবে ৷

যেই সব গাড়ির যন্ত্রাংশ প্রয়োজনের তুলনায় অসক্ষম, সেগুলি বাতিল করা হতে পারে ৷ বা প্রস্তুতকারক সংস্থাকে ৫০০ কোটি টাকা পর্যন্ত জরিমানা করা হতে পারে ৷