বুধবার, ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আগুনে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা স্ত্রীকে

News Sundarban.com :
ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৮
news-image

স্বামী-স্ত্রী ঝগড়া করে স্বামী স্ত্রীর গায়ে কেরোসিন দিয়ে আগুন ধরিয়ে দিল। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহষ্পতিবার  দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলার ঝড়খালি কোষ্টাল থানার ২নং ঝড়খালির নেহেরু পল্লীতে । পুলিশ সুত্রে জানা গেছে আগুন পুড়ে মারাত্মক জখম মহিলার নাম লক্ষী বিশ্বাস। তার স্বামী বাবলু বিশ্বাসকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে বছর ১৫ আগে ঐ এলাকার বাসিন্দা সন্তোষ রায় তাঁর একমাত্র কন্যা লক্ষীর সাথে বিয়ে হয় বাবলু বিশ্বাসের। দম্পতির ১০বছরের এক পুত্র ও ৮ বছরের এক কন্যা রয়েছে। বিয়ের পর থেকে প্রতিদিনই লক্ষীর উপর অত্যাচার চালাতো বাবলু। অভাবের সংসার তারপর সুন্দরবন জঙ্গলের নদীখাড়ীতে মাছ কাঁকড়া ধরে যে টাকায় পয়সা আয় হয় তার সবটাই মদ খেয়ে বাড়ীতে এসে স্ত্রীর উপর লাগাতর অত্যাচার চালাতো। এদিনও নেশা করে এসে স্রীকে পুড়িয়ে মারার জন্য ঘরের মধ্যে স্ত্রীর মাথায় প্রচুর পরিমাণ কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় বাবলু। আগুনে বসতবাড়ীটি পুড়ে ছাই হয়ে যায়। প্রান বাঁচানোর তাগিদে লক্ষী চিৎকার চেঁচামেচি করে বাড়ীর সামনে একটি পুকুরে ঝাঁপ দেয়। চিৎকার শুনে স্থানীয় লোকজন লক্ষীকে উদ্ধার করে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করেন। ঐ গৃহবধুর দেহের প্রায় আশি শতাংশ পুড়ে গেছে। লক্ষীদেবীর বাবা সন্তোষ রায়,ভাই সঞ্জয় রায় এবং সঞ্জয় বাবুর স্ত্রীর সন্ধ্যা রায় জানান নিজের স্তীর উপর চরম অত্যাচারের জন্য বাবলুর যেন দৃষ্টান্ত মুলক কঠোর শাস্তি হয়। না হলে নারীদের প্রতি অত্যাচার অারো বেড়ে যাবে। বর্তমানে জীবন যুদ্ধে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে লড়াই করছেন লক্ষীদেবী।