মঙ্গলবার, ৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সাংসদ কুলদীপ নায়ারকে দীর্ঘ জেরা করেছে আসাম পুলিশ

News Sundarban.com :
নভেম্বর ২২, ২০১৭
news-image

প্রবীণ সাংবাদিক, লেখক ও সাবেক সাংসদ কুলদীপ নায়ারকে দীর্ঘ জেরা করেছে আসাম পুলিশ। ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যটিতে জাতীয় নাগরিক নিবন্ধনকরণ (এনআরসি) ইস্যুতে জমিয়ত উলেমা-ই-হিন্দের সভাপতি মাওলানা আরশাদ মাদানির মন্তব্যের জের ধরে তাকে এ জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

সোমবার দিল্লিতে ৯৪ বছর বয়সী এই সাংবাদিককে দীর্ঘ সময় জেরা করে সহকারী কমিশনার (এসিপি) প্রাঞ্জল বরার নেতৃত্বাধীন আসাম পুলিশের একটি বিশেষ দল। খবর ইন্ডিয়া ব্লুমস নিউজ সার্ভিসের (আইবিএনএস)

পুলিশ জানিয়েছে, আসামে ‘বৈধ নাগরিকদের’ তালিকা থেকে লাখ লাখ মুসলমান বাদ পড়তে পারেন—সেই আশঙ্কায় গত ১৩ নভেম্বর দিল্লিতে এক সেমিনারের আয়োজন করে ‘দিল্লি অ্যাকশন কমিটি ফর আসাম’ (ডিএসিএ)। রাজ্যের বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী হীরেণ গোঁহাই, হায়দর হোসেন, মঞ্জিত মহন্ত, হাফিজ রশিদ চৌধুরী, অপূর্ব বরুয়া প্রমুখের উপস্থিতিতে সেমিনারে আরশাদ মাদানি উসকানিমূলক বক্তব্য দেন। গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, সেমিনারে মাদানি বলেন, ‘৫০ লাখ মুসলমানকে বাদ দেওয়ার প্রক্রিয়াটি যদি আসামের লোকের হাতে ছেড়ে দেওয়া হয়, তবে তারা হত্যাকাণ্ড ঘটাবে ও প্রতিশোধ নেবে।’ তার ওই মন্তব্যের জেরে আসামে ব্যাপক বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। এরপর মাদানিসহ সেমিনারে অংশগ্রহণকারী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অন্তত আটটি এফআইআর দায়ের হয়।

জমিয়তপ্রধান মাদানিসহ আসামের কয়েকজন বুদ্ধিজীবীর উপস্থিতিতে সেমিনারটি আয়োজনে দিল্লিতে ভারতের সংবিধান ক্লাবের স্পিকার হল বরাদ্দের জন্য লোকসভার স্পিকারকে কুলদীপ নায়ার চিঠি পাঠিয়েছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এছাড়া বিতর্কিত ওই মন্তব্যের জন্য দ্বিতীয় দফায় মাদানির ব্যক্তিগত সচিব ফজলুল রেহমানকেও পুলিশের ওই দলটি জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। তাছাড়া ওই সেমিনার সংশ্লিষ্ট ফুটেজ, দলিল এবং অন্যান্য সামগ্রী জব্দ করা হয়েছে।

এর আগে রোববার দিল্লি পুলিশ স্টেশনে সেমিনারের আয়োজক বনজিৎ হোসেন ও আম্রপালী বৌমূতরীকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। মাদানির খোঁজেও দিল্লিজুড়ে চলছে অভিযান।