সোমবার, ২২শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

আদালতের নির্দেশে পুলিশি ঘেরাটোপে ‘ঘরছাড়া’রা নিরাপদে ঘরে পৌঁছে দিলেন পুলিশ

News Sundarban.com :
জানুয়ারি ১৭, ২০২৪
news-image

নিজস্ব প্রতিনিধি,ক্যানিং – মহামান্য আদালতের নির্দেশে পুলিশি ঘেরাটোপে ‘ঘরছাড়া’দের নিরাপদে ঘরে পৌঁছে দিলেন পুলিশ।বুধবার ঘটনাটি ঘটেছে জীবনতলা থানার অন্তর্গত মঠেরদিঘী পঞ্চায়েত এলাকায়।পুলিশ প্রশাসনের পাশাপাশি উপস্থিত ছিলেন বিজেপির রাজ্য সদস্য তথা জয়নগর সাংগঠনিক জেলার মূখপত্র সঞ্জয় কুমার নায়েক,জয়নগর সাংগঠনিক জেলার সভানেত্রী মামনি দাস সহ অন্যান্যরা।উল্লেখ্য গত পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর থেকে রাজ্যের শাসক দলের অত্যাচারে জর্জরিত হয়ে ঘর ছেড়েছিলেন জীবনতলা থানার অন্তর্গত মঠেরদিঘী পঞ্চায়েতের একাধিক বিজেপি কর্মী সমর্থক,অভিযোগ বিজেপি নেতৃত্বের।তৃণমূল কংগ্রেসের সন্ত্রাসে তাঁরা বাড়িতে ফিরতে পারছিলেন না। এমত অবস্থায় কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেন আক্রান্ত পরিবারের সদস্য প্রসেনজিত মন্ডল সহ অন্যান্যরা।অবশেষে মহামান্য কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি জয় সেনগুপ্ত নির্দেশ দেন ঘরছাড়াদের অবিলম্বে ঘরে ফেরাতে হবে। আদালতের নির্দেশে নড়েচড়ে বসে জীবনতলা থানার পুলিশ। জীবনতলা থানার পুলিশ বুধবার দুপুরে জীবনতলা থানার অন্তর্গত মঠেরদিঘী পঞ্চায়েতের শান্তমারা গ্রাম ও হালদার পাড়ার বাসিন্দা বিজেপি কর্মী সমর্থক ‘ঘরছাড়া’ প্রসেনজিৎ মন্ডল,সুব্রত দাস,জগবন্ধু ভগত ,বিকাশ দাস ও তাঁদের পরিবারের সদস্যদের নিরাপদে বাড়িতেই পৌঁছে দেয়।

ঘটনা প্রসঙ্গে বিজেপির রাজ্য সদস্য তথা জয়নগর সাংগঠনিক জেলার মুখপত্র সঞ্জয় কুমার নায়ক জানিয়েছেন, ‘রাজ্যের শাসকদলের গুন্ডা বাহিনী পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর থেকে লাগাতর সন্ত্রাস চালিয়েছে। আমাদের কর্মী সমর্থকদের মারধর করে,বাড়িঘর ভাঙচুর করেছিল তৃণমূল আশ্রিত গুন্ডাবাহিনী। সেই সময় পুলিশও ছিল নিষ্ক্রীয়। শাসকদলের দলদাসে পরিণত হয়ে কোন কাজ করছিল না পুলিশ। অবশেষে আদালতে আমাদের কে পরাস্ত করতে পারেনি কোন শক্তি। সত্যের জয় হয়েছে।ঘরছাড়া বিজেপি কর্মীরা বাড়িতে ফিরেছেন।যে পুলিশ সন্ত্রাসের সময় শাসকদলের পক্ষ নিয়ে কোন কাজ করেনি,সেই পুলিশ আদালতের নির্দেশে ঘরছাড়াদের ঘরে ফিরিয়ে দেওয়া আমরা আনন্দিত।যতদিন না রাজ্যের শাসক দল ক্ষমতাচ্যুত হচ্ছে ততদিনই এই রাজ্য ‘নৈরাজ্য’ চলবে। আদালতই আমাদের ও সাধারণ মানুষের একমাত্র ভরসা’।