বৃহস্পতিবার, ২৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ক্যানিংয়ে কেন্দ্রীয় লবনাক্ত মৃত্তিকা গবেষণা সংস্থায় পালিত হল কৃষক দিবস

News Sundarban.com :
ডিসেম্বর ৫, ২০২৩
news-image

নিজস্ব প্রতিনিধি, সুন্দরবন: প্রত্যন্ত সুন্দরবন সহ দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলার বিভিন্ন প্রান্তে কৃষি ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়নের লক্ষ্যে ক্যানিংয়ে কেন্দ্রীয় লবনাক্ত মৃত্তিকা গবেষণা সংস্থায় পালিত হল “কৃষক দিবস”।সোমবার সকালে দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলার ক্যানিংয়ে কেন্দ্রীয় লবনাক্ত মৃত্তিকা গবেষণা সংস্থার উদ্যোগে প্রদীপ প্রজ্জ্বোলনের মধ্য দিয়ে কৃষক দিবসের সূচনা করেন বিজ্ঞানী ডঃ টি কে ঘোষাল। এদিন সুন্দরবন সহ জেলার বাসন্তী,গোসাবা,জীবনতলা,ক্যানিং,সাগর,নামখানা এলাকার প্রায় ২০০ জনের অধিক কৃষক কৃষি দিবসে উপস্থিত ছিলেন। উক্ত অনুষ্ঠানে বিশিষ্টদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ক্যানিংয়ের কেন্দ্রীয় লবনাক্ত মৃত্তিকা গবেষণা সংস্থার প্রধান অধিকর্তা বিঞ্জানী তথা গবেষক ডঃ ধীমান বর্মন,জুওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার সুন্দরবন আঞ্চলিক কেন্দ্রের অধিকর্তা ডঃ জে এস যোগেশ কুমার,ক্যানিং থানার আইসি সৌগত ঘোষ সহ দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলার বিভিন্ন প্রান্তের একাধিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।এদিন মুলত সুন্দরবন এলাকায় কৃষকরা কি ধরনের চাষ করলে লাভবান হবেন,কম জলে কি কি লাভজনক চাষ করা যায়,বর্ষার জল কি ভাবে সংরক্ষণ করে চাষের কাজে ব্যবহার করা যায় সেই সমস্ত বিষয়ের উপর আলোচনা হয়।

বিশেষ করে সুন্দরবনের মিঠাজলে বৈঞ্জানিক পদ্ধতিতে মাছ করে দ্বিগুণ আয় করা যায় সে সম্পর্কে কৃষকদের সাথে বিশেষ ভাবে আলোচনা করেন কৃষক দিবসে উপস্থিত বৈঞ্জানিক গণ।অন্যদিকে কৃষকদের লোন কিংবা সাবসিডি পেতে কি কি করণীয় সেবিষয়ে বিশেষ আলোচনা করেন ক্যানিং স্টেট ব্যাঙ্কের প্রধান পরিচালক অভিষেক মজুমদার।

অন্যদিকে এদিন এই বিশেষ কৃষক দিবসে বেশকিছু প্রতিভাবান প্রগতিশীল সফল কৃষকদের হাতে পুরষ্কারও তুলে দেওয়া হয়। এদিন অনুষ্ঠানে ক্যানিং ১ ব্লকের শিখা ভুঁইয়া,পার্থসারথী পাইক,উদয় হালদার,অধীর বিশাল,ক্যানিং ২ ব্লকের সুবীর সরদার,আশাদুল সেখ,পাথরপ্রতিমার সুধাংশু শেখর দে,সাগরের সুখদেব নাগ,গোসাবার নিতাইহরি মন্ডল,অনুপমা মন্ডল সফল কৃষক বন্ধু কে পুরষ্কৃত করা হয় কৃষক দিবস মঞ্চ থেকে। উল্লেখ্য সুন্দরবন এলাকায় লবনাক্ত মাটি আর নোনা আবহাওয়ার সাথে লড়াই করে কৃষকদের জীবিকা নির্ধারণ করতে হয়।কোন ধরনের বীজ ব্যবহার কিংবা কোন ধরনের চাষ করলে কৃষকরা বেশী লাভবান হবেন সেই আলোচনার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের ধান চাষ,আলু চাষ,জিয়ল মাছ চাষ,হাঁস-মুরগী,ছাগল চাষ করে কিভাবে লাভবান হওয়া যায় তার আলোচনা হয়।আবার কৃষকদের জন্য কেন্দ্র সরকার ও রাজ্য সরকারের যে সমস্ত প্রকল্প রয়েছে তার সর্ম্পকে ও কৃষকদের সাথে আলোচনার মাধ্যমে বোঝানো হয়। উল্লেখ্য সুন্দরবন এলাকায় দ্বি-ফসলি জমিতে উন্নতমানের ফসল চাষ করে অর্থনৈতিক পরিকাঠামোর যাতে আগামী দিনে অগ্রগতি হয় সেবিষয়েও আলোচনা হয়।

ক্যানিং ১ ব্লকের চাষী সুব্রত ঘোষ জানান এখানে আলোচনায় অংশ গ্রহন করে জানতে পারলাম যে ধান জমিতে ও কই,মাগুর মাছ প্রজাতির চাষ করা যায়।

ক্যানিংয়ে কেন্দ্রীয় লবনাক্ত মৃত্তিকা গবেষণা সংস্থায় কেন্দ্রের প্রধান অধিকর্তা বিঞ্জানী তথা গবেষক ডঃ ধীমান বর্মন বলেন “সুন্দরবন এলাকায় সাধারণ চাষীরা যাতে তাঁদের চাষের উন্নতি সাধন করতে পারে এবং আর্থিক ভাবে সফল হয় সেই বিষয়েই আলোচনা হয়েছে এবং কৃষি কাজে দ্রুত উন্নয়ণের বিপ্লব ঘটানোর লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে সফল কৃষকদের কে যথাযোগ্য সম্মান প্রদানের মধ্যদিয়ে দিবস পালন করা হয়েছে”।