শুক্রবার, ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ভেঙে পড়েছে মৌসুনি দ্বীপের পর্যটন কেন্দ্রের পরিকাঠামো, আবারও ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই

News Sundarban.com :
আগস্ট ২১, ২০২৩
news-image

শিল্পা মাইতি , নামখানা: বারবার ভেঙে পড়ছে, আবারও গড়ে তোলা হচ্ছে। কিন্তু ভবিষ্যৎ কি? কিভাবে বাঁচিয়ে রাখা যাবে একটি পর্যটন কেন্দ্র কে? এইরূপ নানান প্রশ্ন উঠে এসেছে, ২৪ পরগনা জেলার নামখানার মৌসুনি পর্যটন কেন্দ্রকে ঘিরে। বর্তমানে এই পর্যটন কেন্দ্রের পরিকাঠামো প্রায় ভেঙে পড়েছে। আর সেই কারণেই অনেকটাই কমে গিয়েছে পর্যটকদের সংখ্যা। পর্যটন কেন্দ্রের সামনে থাকা সুবিশাল বালুচর ক্রমশ ভাঙতে ভাঙতে যেন এগিয়ে আসছে। এমনকি এই পর্যটন কেন্দ্রে গড়ে ওঠা কটেজের সংখ্যাও ক্রমশ কমছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, অতীতে এক সময় এই পর্যটন কেন্দ্রে কটেজের সংখ্যা ছিল প্রায় ৬০টি। সেই সংখ্যা কমতে কমতে এখন প্রায় অর্ধেকে এসে দাঁড়িয়েছে।

অথচ খুব কম সময়ের মধ্যেই মৌসুনি দ্বীপের এই পর্যটন কেন্দ্রটি ভ্রমণপিপাসু মানুষের কাছে খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিল।

নামখানার বকখালিতে ঘুরতে আসা পর্যটকেরা, অন্তত একরাত , এই পর্যটন কেন্দ্রে কাটিয়ে তবেই তাঁরা বাড়ি ফিরতেন। আজ সেই জনপ্রিয়তা অনেকটাই কমে গিয়েছে। মূলত উত্তাল ঢেউয়ের তান্ডবে ও বারবার প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কারণে ভেঙে পড়ছে এই পর্যটন কেন্দ্রের পরিকাঠামো। কিন্তু একটা সময় মৌসুনি দ্বীপের এই পর্যটন কেন্দ্রের মনোরম প্রাকৃতিক দৃশ্য দেখে মুগ্ধ হতেন পর্যটকেরা। আজ সেই সৌন্দর্য ক্রমশ হারিয়ে যাচ্ছে। তবে এই পর্যটন কেন্দ্রটিকে বাঁচিয়ে রাখতে গেলে, কংক্রিটের নদী বাঁধের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী। এলাকাবাসীর দাবি, এই এলাকায় কংক্রিটের নদী বাঁধ তৈরি করা হলে, তবেই এই পর্যটন কেন্দ্রটিকে বাঁচানো সম্ভব।

যদিও সব বাধা কাটিয়ে আবারও নতুন করে পর্যটন কেন্দ্রটিকে সাজিয়ে তুলতে ব্যস্ত কটেজের মালিকেরা। আর প্রায় দুমাস পরেই রয়েছে শারদ উৎসব। এই শারদ উৎসবে পর্যটকেরা এসে আবারও ভিড় জমাবেন মৌসুনি দ্বীপের পর্যটন কেন্দ্ৰে, এই আশাতেই এখন বুক বেঁধেছেন এলাকাবাসী থেকে কটেজের মালিকেরা।