মঙ্গলবার, ২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

রক্তে হিমগ্লোবিনের মাত্রা ২.৭ , মরণাপন্ন শিশুর প্রাণ বাঁচলো পুলিশের রক্তে

News Sundarban.com :
আগস্ট ২, ২০২৩
news-image

সুভাষ চন্দ্র দাশ, ক্যানিং –বুধবার ঘড়ির কাঁটা টিকিটিক করে সকাল ১১ টার ঘরে এগিয়ে চলেছে। বাসন্তী থানাৱ অন্তর্গত শিমূলতলা পুলিশ ক্যাম্পে সমস্ত পুলিশ কর্মীরা বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত। আচমকা হন্তদন্ত হয়ে রাম দেবনাথ নামে এক যুবক হাজীর হলেন পুলিশ ক্যাম্পে।

ক্যাম্পের ইনচার্জ সোমনাথ দাস কে জানা,স্যার বিপদ!উদ্ধার করতে হবে।১০ বছরের এক শিশু থ্যালাসেমিয়ায় আক্ৰান্ত।A+গ্রুপের দুই ইউনিট রক্তের প্রয়োজন। অবস্থা অত্যন্ত সংকট জনক। রক্তে হিমগ্লোবিনের মাত্রা ২.৭ মাত্রায় নেমে গিয়েছে। যে কোন মুহূর্তে বিপদ হতে পারে।জরুরী ভিত্তিতে দুই ইউনিট রক্তের প্ৰয়োজন ।

এমন কথা শুনে বাক্ রুদ্ধ হয়ে পড়েন সোমনাথ দাস সহ তাঁর সহকমীরা।কি করবেন ভেবে উঠতে পারছিলেন না।এরই মধ্যে এএসআই সত্যজিত ৱায় এবং কনস্টেবল অৱিজিৎ সাধুখাঁ দুজনই জানায়, তাদেৱ রক্তের গ্রুপ A+,বিষয়টি জানতে পেরে ক্যানিং মহকুমা পুলিশ আধিকারীক দিবাকৱ দাসকে সমস্ত বিষয়টি জানায় পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ ।পুলিশ আধিকারীক সমস্ত বিষয়টি শোনাৱ পৱ নির্দেশ দেন ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে গিয়ে রক্তদান করার জন্য।উপরতলার নির্দেশ পেয়েই দুই পুলিশ কমী তড়িঘড়ি ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে পৌঁছে গিয়ে রক্তদান কৱেন।

অন্যদিকে শিশুটিৱ মা শ্যামলী পড়িয়া উৎকন্ঠাৱ মধ্যে হাসপাতালে চাতকের মতো অপেক্ষা কৱছিলেন কখন রক্ত জোগাড় হবে সেই আশায়।পুলিশ যে এইভাবে বিপদে এসে পাশে দাঁড়াবেন তিনি ভাবতেও পাৱেননি।

তিনি আরও বলেন,আমাৱ ছেলে রণজিত পড়িয়া থ্যালাসেমিয়ায় আক্ৰান্ত।হঠাৎ গতকাল ছেলের শারীরিক অবস্থা খাৱাপ হতে শুরু করে।সমস্ত শরীর ফুলে যেতে থাকে।জরুরীকালীন ৱক্তেৱ প্ৰয়োজন হয়।রক্ত না পেলে আমাৱ ছেলেকে বাঁচানো যেত না।পুলিশ কর্মারা যে ভাবে আমাৱ ছেলেৱ জীবন বাঁচালেন তা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না।আমি তাঁদেৱ কাছে কৃতঞ্জ।’

ঘটনার বিষয়ে ক্যানিং মহকুমা পুলিশ আধিকারীক দিবাকর দাস বলেছেন, পুলিশ সবসময়ই মানুষেৱ পাশে আছে রয়েছে। কেউ যদি বিপদে পড়ে, আমরা সাধ্যমত তাদেৱ পাশে থাকবো।

অন্যদিকে সমাজকমী রাম দেবনাথ জানিয়েছেন, চারিদিকে যেভাবে রক্তের সংকট দেখা দিচ্ছে,পুলিশ কর্মীদের মতো সাধারণ মানুষ যদি রক্ত দিতে এগিয়ে আসেন ,তাহলে পরবতী সময়ে অনেক মানুষেৱ জীবন বাঁচাতে আমরা সক্ষম হব।