শুক্রবার, ২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

হুগলীর রায়বাজরে মুখার্জী পরিবারের পুজোয় এসে ভারত-বাংলার সংস্কৃতির প্রশংসায় চীনের রাষ্ট্রদূত

News Sundarban.com :
এপ্রিল ১০, ২০২২
news-image

মনোজ রায়, কলকাতা:

ভারতীয় ঐতিহ্য তথা বাংলার সংস্কৃতির প্রশংসায় পঞ্চমুখ চীনের রাষ্ট্রদূত ঝা লিউ। হুগলীর রায়বাজরে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী জয়দীপ মুখার্জীর বাড়ি মা অন্নপূর্ণার পুজো উপলক্ষে আসেন তিনি। পুজোয় এসে দীর্ঘক্ষণ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে দুজনের মধ্যে আলোচনা হয়। এরপর জয়দীপ বাবুর সঙ্গে পাশেই একটি বৈষ্ণব মন্দির ঘুরে দেখেন। শোনেন কীর্তনও।

এরপর তিনি বলেন, আমি বহুদিন দরে ভারতে আছি। ভারতীয় সংস্কৃতির গভীরতা অনেক। বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গের সংস্কৃতি। ইন্দো- চিনের সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। আমার অফিস পাঁচটি রাজ্যে অবস্থিত। পশ্চিমবঙ্গ, বিহার, ওড়িশা, ঝাড়খণ্ড, ছত্তিশগড়। বৌদ্ধ ধর্মাবল্মবীরা খুবই ভালো জাতি। এই জাতি এখন গোটা বিশ্বের পাশাপাশি চিনেও ছড়িয়ে রয়েছে। চিন এখন বিশ্বে বৃহৎ পর্যটন কেন্দ্র। আমি আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি পশ্চিমবঙ্গ ও বৌদ্ধ ধর্মাবল্মবীদের সঙ্গে সংযোগ স্থাপনে। চিনে অনেক সাধারণ বুদ্ধ মন্দির রয়েছে। আমার আগ্রহ রয়েছে বৌদ্ধ ধর্মাবল্মবীও ভারতের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করতে উদ্যত। আমি পশ্চিমবঙ্গের নাচ, গান সংস্কৃতিতে মুগ্ধ। এখনকার ইতিহাস, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর আমাকে মুগ্ধ করেছে। তাই আজ এই বৈষ্ণব মন্দিরে এসেছি।

 

এই প্রসঙ্গে জয়দীপ বাবু বলেন, আমাদের বাড়ির পুজোয় প্রতি বছর বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, দেশের বিভিন্ন বিচারপতি সহ বিশিষ্ট ব্যক্তিরা উপস্থিত হন। গতকাল নেপাল এবং অস্ট্রিয়ার রাষ্ট্রদূত এসেছিলেন। আমাদের লক্ষ্য প্রতিটি দেশের সঙ্গে ভারতের শান্তিপূর্ন পরিবেশে বজায় রাখা এবং বন্ধুত্বপূর্ন সম্পর্ক স্থাপন করা। চায়না ভারতের খুব ভালো বন্ধু রাষ্ট্র। চায়নার কৃষ্টি সংস্কৃতি যেমন প্রাচীন তেমনি ভারতের সংস্কৃতিও বহু প্রাচীন। দক্ষিণপূর্ব এশিয়ায় এই বন্ধন আমাদের আরও শক্তিশালী করবে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের বাড়ির এই পুজোয় গতকাল থেকে বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতেরা ছাড়াও সুপ্রিম কোর্ট ও হাই কোর্টের বিচারপতি, বিভিন্ন আধিকারিক এবং সমাজের বিশিষ্ট মানুষেরা এসেছেন। এই পুজোর মাধ্যমে আমাদের সংকলের মধ্যে ভাতৃত্ববোধ ও মেলবন্ধন গড়ে ওঠে।