শুক্রবার, ২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

হুগলীর রায়বাজারে মুখার্জী পরিবারের ঐতিহ্যবাহী মা অন্নপূর্ণার পুজোর ৮৭ তম বছরে পদার্পণ

News Sundarban.com :
এপ্রিল ৯, ২০২২
news-image

মনোজ রায়, কলকাতা:

বৈদিক রীতিনীতি মেনে ও প্রাচীন ঐতিহ্য বজায় রেখে প্রতিবছর মা অন্নপূর্ণা পুজিত হন হুগলীর রায়বাজারে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী জয়দীপ মুখার্জীর বাড়িতে। চিরাচরিত প্রথা অনুযায়ী নবরাত্রির প্রতিপদ থেকেই মা অন্নপূর্ণার পুজো শুরু হয়ে গিয়েছে। বৈদিক রীতিনীতি, কুলাচার ও লোকাচার মেনে এই পূজা অনুষ্ঠিত হয়। অষ্টমীতে বাচ্চা মেয়েকে মায়ের রূপে সাজিয়ে নিখুঁত ভাবে হয় কুমারী পুজো। বিকেলে যজ্ঞ। মুখার্জী পরিবারের এই পুজোর অন্যতম বিশেষ দিক, কোনও কালেও এই পুজোয় পশুবলি দেওয়া হয় নি। নিয়ম করে প্রতিবার আখ, চালকুমড়া ও কলা বলি দেওয়া হয়।

জয়দীপ বাবু জানান, মুখার্জী পরিবারের এই ঐতিহ্যবাহী পুজো এবার ৮৭ তম বছরে প্রদার্পন করল। এই পুজোর প্রচলন করেন জয়দীপবাবুর ঠাকুরমা প্রয়াত কমলা রানী মুখার্জী। পরবর্তীকালে এই পুজো বহন করে নিয়ে গেছেন জয়দীপ বাবুর মাতামহি প্রয়াত শেফালিকা সরকার এবং তারপর তাঁর পিতা শৈলেন্দ্রনাথ মুখার্জী ও মাতা শ্রীমতি মলয়া মুখার্জী।

এই বছর জয়দীপবাবুর মাতা মলয়া মুখার্জীর আকস্মিক মৃত্যুতে মুখার্জী পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে, তা সত্ত্বেও চিরাচরিত রীতি মেনে এবারও পুজো হচ্ছে মা অন্নপূর্ণার। তবে এবছর কোনও প্রকার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান, শিল্পী সমাবেশ বা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হচ্ছে না। শোকাচ্ছন্ন জয়দীপ বাবু ধর্মীয় রীতিনীতি অনুযায়ী মাতৃপূজা অংশগ্রহণ করে পূজার ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছেন।

মুখার্জী পরিবারের এই ঐতিহ্যবাহী পুজোতে সারা দেশের বিভিন্ন বিচারপতি, রাষ্ট্রদূত, মন্ত্রী-আমলা সহ বিশিষ্ট ব্যক্তিরা উপস্থিত থেকেছেন বিভিন্ন সময়ে বলে জানান তিনি। জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে বহু মানুষের সমাগম হয়। প্রত্যেকে অষ্টমীর দিন ভোগ প্রসাদ গ্রহণ করেন ভক্তরা। এই পুজো উপলক্ষে জয়দীপ বাবু সকলকে প্রীতি ও শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেছেন, পৃথিবী তথা ভারতবর্ষ, পশ্চিমবঙ্গের উন্নতি হোক, সবাই ভালো থাকুক, এটাই রাজরাজেশ্বরী মা অন্নপূর্ণার কাছে প্রার্থনা।