বুধবার, ১২ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

বন্‌ধের ডাক বিজেপির: শহরজুড়ে মোতায়েন রয়েছে পুলিস, অপ্রীতিকর পরিস্থিতি রুখতে রাখা হয়েছে জলকামান

News Sundarban.com :
ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২২
news-image

পুরভোটে সন্ত্রাসের অভিযোগে সোমবার ১২ ঘণ্টার বন্‌ধের ডাক দিয়েছে বিজেপি । সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত বন্‌ধ ডাকা হয়েছে। বিজেপ সূত্রে খবর, বন্‌ধ সফল করতে আজ রাজ্যের সর্বত্র বিজেপি কর্মীরা পথে নামবে। সিপিএম, কংগ্রেসও পুরভোট  নিয়ে ক্ষোভ উগরে দিয়েছে। বন্‌ধের বিরোধিতা করে নিজেদের রাজনৈতিক অবস্থান জানিয়ে দিয়েছে তৃণমূল।

বিরোধীদের অভিযোগ ১০৮ পুরসভাতেই নির্বাচনের নামে প্রহসন হয়েছে। অন্যদিকে, নবান্নের তরফে সাফ জানিয়ে দেওয়া হল- বনধ রাজ্য সরকারের নীতিবিরুদ্ধে। তাই কোনও বনধ পালন হবে না। সোমবার রাজ্যের সমস্ত কিছু খোলা থাকবে। রাজ্যের সবকিছুই স্বাভাবিক থাকবে বলে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে জানিয়ে দিয়েছে নবান্ন।

11:40 am: বিজেপির ডাকা বনধকে কেন্দ্র করে শিলিগুড়িতে সাময়িক ভাবে কিছুটা উত্তেজনা ছড়ায়। তবে মোটের ওপর অন্যান্য দিনের মতোই শহরের চিত্র প্রায় স্বাভাবিক। যানবাহন চলাচলও স্বাভাবিক। শহরজুড়ে মোতায়েন রয়েছে পুলিস। অপ্রীতিকর পরিস্থিতি রুখতে রাখা হয়েছে জলকামান।

সকাল থেকেই বনধকে সফল করতে শিলিগুড়ির রাস্তায় নামেন বিজেপির কর্মী সমর্থকরা। মিছিল করে  দোকানপাট বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা হয়। মিছিলে উপস্থিত ছিলেন শিলিগুড়ির বিধায়ক শংকর ঘোষ, মাটিগাড়া নকশালবাড়ির বিধায়ক আনন্দময় বর্মণরা।

পুলিস তাদের জমায়েত করতে বাধা দিলে রাস্তায় শুয়ে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন বিধায়ক শংকর ঘোষ সহ বিজেপি কর্মীরা। দীর্ঘক্ষন ধস্তাধস্তির পর শিলিগুড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয় বিধায়ক সহ শতাধিক বিজেপি কর্মী-সমর্থককে। অন্যদিকে, আটক করা হয়েছে মাটিগাড়া-নকশালবাড়ির বিধায়ক আনন্দময় বর্মণকেও।

10:40 am: নন্দীগ্রামে বিজেপির পথ অবরোধ। বনধকে ঘিরে পুলিসের সঙ্গে ধুন্ধুমার, ঠেলাঠেলি, বচসা। মহিলাদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি, বচসা। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়ায় নন্দীগ্রামের টেংগুয়া এলাকায়। পুলিসের বাধাকে উপেক্ষা করেই অবরোধ চালিয়ে যায় বিজেপি কর্মীরা। পুলিস ঘটনাস্থলে এসে তাঁদের সরে যেতে বললেও, কোনও লাভ হয়নি। এরপরই জোর করে বনধ সমর্থকদের সেখানে থেকে সরিয়ে দেয় পুলিস।

8.20 am: সকাল থেকে  বনধের কোনও প্রভাব পরেনি দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার ক্যানিংয়ে। বনধকে প্রতিহত করতে তৎপর ক্যানিং ট্রাফিক পুলিস। সকাল থেকে রাস্তায় দাঁড়িয়ে ট্রাফিক পুলিস কর্মীরা। স্বাভাবিক রয়েছে যান চলাচল। সকাল থেকেই চলছে ট্রেন।