মঙ্গলবার, ২৩শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সুন্দরবনে মাছ চাষীদের মাছের চারা(পোনা) প্রদান

News Sundarban.com :
আগস্ট ১৮, ২০২০
news-image

বিশ্লেষণ মজুমদার , কুলতলি:

গত ২০ মে সুপার সাইক্লোন আম্ফানের দাপটে তছনছ হয়ে গিয়েছিল গোটা সুন্দরবন।ভেঙে পড়েছিল প্রচুর গাছপালা,বাড়িঘর এমন কি নদীর লবণাক্ত জল চাষের জমিতে এবং পুকুরে ঢুকে গিয়ে ক্ষতি করেছে প্রচুর চাষের জমি। পাশাপাশি প্রচুর ক্ষতি হয়েছে সুন্দরবনের বিভিন্ন এলাকার মিষ্টি জলের মাছ চাষও। ধীরে ধীরে রাজ্য সরকারে সহযোগিতা ক্ষতে প্রলেপ দিয়ে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরতে চলেছে সুন্দরবনে বিধ্বস্ত পরিবার গুলো।

ইতি মধ্যে সুন্দরনের মিষ্টি জলের পুকুর গুলি মাছ চাষ করে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করলেও করোনা আর আম্ফানের দাপটে অর্থনৈতিক ভাবে পিছিয়ে পড়েছেন সুন্দরবন এলাকার আদিবাসী সম্প্রদায়ের মাছ চাষীরা।সুন্দরবনের বুকে মিষ্টি জলে মাছ চাষ করে আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষজন যাতে করে অর্থনৈতিক ভাবে স্বাবলম্বী হতে পারে, তার জন্য বাসন্তী ব্লকের কুলতলি মিলনতীর্থ সোসাইটির হাত ধরে আম্ফান ক্ষতিগ্রস্ত আদিবাসী সম্প্রদায়ের মাছ চাষীদের কে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিলেন কেন্দ্রীয় মৎস্য গবেষনা সংস্থা।সোমবার বিকালে কুলতলি মিলন তীর্থ সোসাইটি প্রাঙ্গণে এক ক্ষুদ্র অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে আম্ফান ক্ষতিগ্রস্ত আদিবাসী সম্প্রদায়ের আর্থ সামাজিক উন্নয়নের জন্য বাসন্তী ব্লকের বিভিন্ন প্রান্তের আদিবাসী সম্প্রদায়ের ২৫৬ জন আম্ফান ক্ষতিগ্রস্ত মাছ চাষীদের হাতে পাঁচ কেজি করে মাছের চারা(পোনা),চুন এবং পর্যাপ্ত পরিমাণ মাছের খাবার প্রদান করা হয়।অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বারাকপুর কেন্দ্রীয় মৎস্য গবেষণা সংস্থার ডাইরেক্টর বসন্ত কুমার দাস,বিশিষ্ট সমাজসেবী তথা সুন্দরবন উন্নয়ণ পর্ষদের প্রাক্তন সদস্য কুলতলি মিলনতীর্থ সোসাইটির কর্ণধার লোকমান মোল্লা সহ অন্যান্য বিশিষ্টরা।