রবিবার, ১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

বিধায়কের বাড়িতে যুবকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার,এলাকায় চাঞ্চল্য

News Sundarban.com :
জুলাই ২৩, ২০২০
news-image

বিশ্লেষণ মজুমদার, ক্যানিং  

বিধায়কের বাড়ি থেকে এক যুবকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার কে কেন্দ্র করে এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়ালো।ঘটনাটি ঘটেছে বৃহষ্পতিবার সকালে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার বাসন্তী ব্লকের চুনাখালি গ্রাম পঞ্চায়েতের বগুলাখালি গ্রামে গোসাবার বিধায়ক জয়ন্ত নস্করের বাড়িতে।বাসন্তী থানার পুলিশ খবর পেয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় যুবক কে উদ্ধার করে বাসন্তী গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মৃত বলে ঘোষনা করেন। মৃত যুবকের নাম লাবণ্য হালদার(২২)।

স্থানীয় সুত্রে জানাগেছে মৃত যুবকের বাবা তরুণকান্তি হালদার ছিলেন একজন প্রাইমারী স্কুল শিক্ষক।তরুণবাবু গোসাবা ব্লকের পাঠানখালি গ্রাম পঞ্চায়েতের বটতলী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন।কোন এক অজ্ঞাত কারণে তৎকালীন সিপিএমের হার্মাদ বাহিনী এই প্রতিবাদী শিক্ষক কে বাড়ি থেকে ডেকে এনে প্রকাশ্যে কুপিয়ে খুন করে ২০১১ সালের ৪ জুন । খুনে বাধা দিতে যায় শিক্ষকের স্ত্রী কৃষ্ণা হালদার। তাঁকেও খুন করে দুষ্কৃতিরা।

এরপর এই শিক্ষক দম্পতির নাবালক ছেলে লাবণ্য ও এক মেয়ে কোয়েল হালদার অসহায় হয়ে পড়ে। তৎকালীন সময়ে জয়ন্ত নস্কর লাবণ্য কে নিজের কাছে এনে রাখেন মানুষ করার জন্য।
গোসাবার বিধায়ক জয়ন্ত নস্করের বাড়ির তিনতলার ঘরে বসবাস করতেন যুবক লাবণ্য৷এ দিন সকালে তিনতলার ছাদ থেকে ওই যুবকের দেহ ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার হয়৷
তবে এমন মর্মান্তিক ঘটনায় বিধায়ক জয়ন্ত নস্কর মর্মাহত হয়ে পড়েছেন। বার বার তিনি শোকে বিহ্বল্যে কান্নায় ভেঙে পড়ছেন।পুলিশের প্রাথমিক অনুমান, ওই যুবক আত্মঘাতী হয়েছেন৷তবে ঠিক কী কারণে আত্মঘাতী হয়েছেন এই যুবক,না কি মৃত্যুর পিছনে অন্য কোন রহস্য লুকিয়ে?সমস্ত বিষয়ে খতিয়ে দেখে মৃতদেহ ময়না তদন্ত পাঠিয়ে তদন্ত শুরু করেছে বাসন্তী থানার পুলিশ।