বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

নবান্নের কার্যকলাপে লকডাউন নিয়ে চরমে বিভ্রান্তি, মাঠে নামলেন মমতা

News Sundarban.com :
জুলাই ৮, ২০২০
news-image

গোটা রাজ্যে নয় শুধুমাত্র কন্টেনমেইন্ট জোন হিসেবে চিহ্নিত এলাকাতেই আগামী এক সপ্তাহ কঠোরভাবে লকডাউন পালন করা হবে বলে স্পষ্ট করে দিল রাজ্য সরকার।মঙ্গলবারই জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল আজ বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টা থেকে কিছু কিছু এলাকায় কঠোর ভাবে লকডাউনের বিধি-নিষেধ কার্যকর হবে।সেই মর্মে জেলাশাসকদের নির্দেশিকা পাঠান স্বরাষ্ট্র সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে সেজন্য এলাকা চিহ্নিত করার দ্বায়িত্ব দেওয়া হয় স্থানীয় প্রশাসনকে।কতদিনের জন্য লকডাউন জারি করা হবে ওই নির্দেশিকায় তারও কোন উল্লেখ না থাকায় বিভ্রান্তি ছড়ায়।যা দূর করতে এদিন আসরে নামতে হয় মুখ্যমন্ত্রীকে।কনটেইনমেন্ট জোনের তালিকা তৈরি নিয়ে জেলা প্রসাসনের ভূমিকাতেও ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন নবান্নে বিভিন্ন মেডিকেল কলেজের কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। সেখানে মুখ্যমন্ত্রী বলেন নতুন করে রাজ্যে লকডাউন জারি করা হচ্ছে বলে বিভিন্ন মহল থেকে যে প্রচার চালানো হচ্ছে তাতে জনমানসে ভুল বার্তা যাচ্ছে। সার্বিকভাবে লকডাউন করার সরকারের কোনো পরিকল্পনা নেই। রোগ ছড়িয়ে পড়া আটকাতে সংক্রমণ প্রবণ এলাকা চিহ্নিত করে সেখানেই বিধি-নিষেধ কার্যকর করা হবে । এক সপ্তাহ অন্তর পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করা হবে।
মুখ্যমন্ত্রী জানান, কনটেইনমেন্ট জোন ও বাফার জোন গুলিকে একত্রিত করে ছোট ছোট এলাকা লকডাউন এর জন্য বেছে নেওয়া হয়েছে। এইসব এলাকার নাম সরকার বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়ে দেবে।বাকি এলাকায় জনজীবন স্বাভাবিক থাকবে।কলকাতা উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং হাওড়ার এই কনটেইনমেন্ট জোনের তালিকা মুখ্যমন্ত্রী নিজে খতিয়ে দেখেন। দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলায় কন্টেইন্মেন্ট জোনের তালিকায় প্রয়োজনের অতিরিক্ত এলাকার নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে বলে মুখ্যমন্ত্রী জেলা প্রশাসনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। ওই তালিকা পুনর্বিবেচনা করে সংশোধিত ভাবে তা প্রকাশ করতে তিনি মুখ্যসচিব ও স্বরাষ্ট্র সচিবকে নির্দেশ দেন।

মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্র সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় জেলাশাসকদের উদ্দ্যেশ্যে যে নির্দেশিকা জারি করেছেন সেই অনুসারে আজ বিকেল পাঁচটা থেকে নতুন নির্দেশিকা কার্যকর হবে।কন্টেইনমেন্ট জোনে সমস্ত সরকারি ও বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকবে। জরুরি নয় এমন সব পরিষেবা বন্ধ রাখা হবে। তাছাড়া যে কোনও ধরনের জমায়েতে কড়া নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। শিল্প সংস্থা, ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান, বাজারও বন্ধ রাখা হবে । কন্টেনমেন্ট জোনে যে কোনও ধরনের গণ পরিবহণেও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।