বৃহস্পতিবার, ২৩শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

করোনার জেরে ক্যানিংয়ে তীব্র রক্তের সংকট,ভরসা ক্যানিংয়ের ত্রাতা পরেশ’রা

News Sundarban.com :
মার্চ ৩০, ২০২০
news-image

 

ক্যানিং- নাম পরেশ রাম দাস। ক্যানিং ব্লক তৃণমূল যুবসভাপতি পদে অধিষ্ঠিতও। তবে করোনা সংকট মুহূর্তে দলীয় তকমা ঝেড়ে ফেলে সমাজ সেবায় ব্রতী তিনি। বাড়ী অদূরেই ক্যানিং মহকুমা হাসপাতাল। সেখানে রয়েছে ব্লাড ব্যাঙ্ক।করোনার তান্ডবে জেরবার সাধারণ মানুষজন থেকে রোগী ও রোগীর পরিজনেরা। তারপর করোনা থাবা থেকে বাঁচার লড়াই শুরু হয়েছে দেশ জুড়ে। শুরু হয়েছে লকডাউন পক্রিয়াও।আর এই লকডাউনের জেরে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী থেকে সংগঠনরা রক্তদান উৎসব থেকে বিরত রয়েছেন।আর সেই কারণেই হাহাকার শুরু হয়েছে এক ফোঁটা রক্তের জন্য।বিশেষ করে থ্যালাসেমিয়া রোগীদের মধ্যে এটা লক্ষ্য করা গেছে। আর এমনই কঠিন চরম বাস্তব চিত্রটি উপলব্ধি করতে পেরেছেন ক্যানিংয়ের যুবনেতা পরেশরাম দাস।তাই এমন চমর মুহূর্তে তিনি ঘরে বসে থাকতে নারাজ।তাঁর প্রিয় বন্ধু বান্ধবদের কে একত্রিত করে এই রক্ত সংকট নিয়ে আলাপ আলোচনা করেন। তড়িঘড়ি সিদ্ধান্ত নেন চরম সংকট মুহূর্তে মুমূর্ষ রোগীদের বাঁচাতে রক্তদান করবেন।

অগত্যা লকডাউনের নিয়ম কানুন মেনে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখেই এক একজন করে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালের ব্লাড ব্যাঙ্কে গিয়ে রক্ত দিলেন ৫২ জন।
সংকটতম মুহূর্তে জনমানব সেবায় এমন মানবিক কাজ করতে পেরেই আনন্দিত পরেশ রাম দাস ও তাঁর বন্ধুবান্ধবরা।
মহৎ উদ্দেশ্য নিয়ে সংকটময় পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য রক্তদান শেষে পরেশ রাম দাস জানান “করোনার সময় ভিড় না করে দফায় দফায় আমরা রক্ত দিয়েছি। মন ভরে গিয়েছে সংকটময় পরিস্থিতিতে এমন মানবিক কাজে আত্ম-নিয়োগ করতে পেরে।”
পরেশ ও তার বন্ধুবান্ধদের কাছে কৃতঞ্জতা জানিয়েছেন ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালের ব্লাড ব্যাঙ্কের কর্মী থেকে শুরু করে মাতলা ২ গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান উত্তম দাস,সুন্দরবনের কবি ফারুক আহমেদ সরদার সহ অন্যান্য বিশিষ্টরা।