সোমবার, ২৭শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুমড়ো গাছে সাদা ফুল দেখতে শয়ে শয়ে মানুষের ভীড়

News Sundarban.com :
মার্চ ৮, ২০২০
news-image

 

সুভাষ চন্দ্র দাশ,ক্যানিং –

কুমড়ো গাছে ধবধবে দুধসাদা অদ্ভুতপূর্ব কুমড়ো ফুল ফুটেছে। আর সেই অদ্ভুতপূর্ব কুমড়ো ফুল দেখতে শয়ে শয়ে মনুষজন ভীড় জমিয়েছেন। কোন রকম রাগ না করেই নিজের বাগানে সাদা কুমড়ো ফুল দেখাতে শশব্যস্ত হয়ে পড়েছেন পেশায় ব্যবসায়ী দুলাল চন্দ্র দাস।ঘটনাস্থল দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার প্রত্যন্ত সুন্দরবন এলাকার বাসন্তী ব্লকের জ্যোতিষপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ১ নম্বর রাণীগড় গ্রাম।
গ্রামেরই বাসিন্দা দুলাল চন্দ্র দাস বিগত প্রায় মাস তিনেক আগে বাসন্তী বাজার থেকে একটি কুমড়ো কিনে এনেছিলেন। কুমড়ো টি খাওয়ার পর তার বীজগুলো বাগানের মধ্যে ফেলে দিয়েছিলেন। সেই বীজ থেকে কয়েকটি কুমড়োর চার গাছ জন্মায় দুলাল বাবুর বাগানে। প্রথম দিকে কোন প্রকার এই কুমড়ো গাছের পরিচর্যা করেন নি।পরে কয়েকটা ফল ধরতেই গাছের যত্ন নিয়ে গাছের গোড়ায় জল ও জৈব সার দেন। গত শনিবার সকালে বাগানে গিয়ে দেখতে পান কুমড়ো গাছে কুমড়ো যথারীতি বড় হয়েছে।পাশাপাশি দুলাল বাবুর নজরে পড়ে যায় কুমড়ো গাছে একটি ধবধবে দুধসাদা কুমড়ো ফুল ফুটেছে। এমন অদ্ভুতপূর্ব ফুল দেখে প্রথমে নিজের চোখ কে বিশ্বাস করতে পারছিলেন না। হকচকিয়ে যান তিনি। পরে নিজেই এই কুমড়ো ফুলের গায়ে হাত দিয়ে পরোখ করে দেখেন এবং পরিবারের সকলকে ডেকে এই বিশেষ অদ্ভুতপূর্ব ফুলটি দেখান।
শনিবার দুপুর হতেই এই বিশেষ সাদা কুমড়ো ফুলের খরব গ্রামের পর গ্রাম চাউর হয়ে যায়। খবর শুনে বাসন্তী ব্লকের বিভিন্ন গ্রাম থেকে শয়ে শয়ে লোকজন সাদা কুমড়ো ফুল দেখার জন্য ভীড় জমাতে থাকেন দুলাল বাবুর বাড়ীতে।বাড়ীর মধ্যে এতো লোকের আনাগোনা দেখে বিরক্ত না হয়ে প্রত্যেকেই ফুলটি পরোখ করে দেখার জন্য ব্যবস্থা করেদেন দুলাল বাবু। আর এমন অদ্ভুতপূর্ব খবর জানতে পেরেই বাসন্তীর জয়গোপালপুর গ্রামের বাসিন্দা তথা প্রাক্তন শিক্ষক আকবর সেখ সাদা কুমড়ো ফুলটি স্বচক্ষে পরোখ করে দেখার জন্য হাজীর হয়েছিলেন ঘটনাস্থলে।
আকবর সেখের কথায় “প্রথমে ভেবে ছিলাম ফুলটি তৈরী করে রঙ লাগিয়ে আঠা দিয়ে গাছের সাথে জুড়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু স্বচক্ষে দেখে এবং বিভিন্ন ভাবে হাত দিয়ে পরোখ করে দেখলাম,সত্যি সত্যি কুমড়ো গাছে সাদা কুমড়োর ফুল ফুটেছে।
আকবর বাবু বলেন জীবনে এমন ধরনের ফুল বৃহত্তম এই সুন্দরবন অঞ্চলে ফুটেছে বলে মনে হয় না। এটা বিরল থেকে বিরলতম ঘটনা।
এমন কুমড়ো ফুল প্রসঙ্গে বাসন্তী ব্লকের কৃষি দফতরে এডিএ রামদাস মান্ডি বলেন প্রাকৃতিক কারণে এটা হতে পারে।
রবিবার সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায় প্রাকৃতিক নিয়মে ফুলটি সামান্য শুকিয়ে গেছে। তা স্বত্বেও এমন ভিআইপি কুমড়ো ফুল দেখার জন্য সাধারণ লোকজনের আনাগোনা চলছে।
আগামী দিনে এই কুমড়ো গাছে এমন ফুল আর ফোটে কি না সে বিষয়ে নজর রাখছেন বলে জানিয়েছেন দুলাল বাবু।