সোমবার, ২২শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

হিমালয়ে মাইনাস ৪৫ ডিগ্রি তাপমাত্রায় সাধু, সেনা জওয়ান কে দেখে ধ্বনি দিলেন “জয় শ্রী রাম”

News Sundarban.com :
ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২০
news-image

সুভাষ চন্দ্র দাশ:

হিমালয়ের হিমবাহে মাইনাস ৪৫ ডিগ্রি তাপমাত্রায় সামান্য নেংটি পরাসাধু,দিলেন “জয় শ্রী রাম ধ্বনি”।কেউ নগ্ন দেহে শুধু নেংটি পরে স্বাভাবিকভাবে ঘুরে বেড়াচ্ছেন, তুষারের ওপর বসে ধ্যানও করছেন।এমনটা কাহিনী শুনলে মনে হবে কাল্পনিক।
আশ্চর্য্য এরকমই একটি দুর্লভ বিরল বিরলতম ঘটনার ভিডিও সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে সামাজিক মাধ্যমে।ভারতীয় এক সেনা জওয়ান তিনি তাঁর ভিডিওতে এক হিন্দু সাধুকে দেখা গেছে বরফের ওপর দিয়ে ঘুরে বেড়াতে এবং ধ্যান করতে।আরও আশ্চর্য্যের বিষয় মানাস ৪৫ ডিগ্রী তাপমাত্রায় সাধুর একমাত্র সঙ্গীও আছে। সেই সঙ্গী অন্য কেউ নন।একটি কুকুর।

ভিডিওটিতে দেখা গেছে চারিদিক সাদা বরফ আর বরফের পাহাড় ।তারই মাঝ দিয়ে খালি গায়ে শুধুমাত্র একটি কৌপীন পরে হেঁটে আসছেন এক সাধু। আর তাঁর পাশে রয়েছে সঙ্গী একটি কুকুর।সামান্য একটু পরে দেখা যায়,একটি জায়গা খুঁজে নিয়ে বরফের উপর বসে পড়েছেন তিনি। তার পরই হয়ে পড়েন ধ্যানমগ্ন। আর এর সামান্য একটু দূরে বসে তাঁর দিকে তাকিয়ে রয়েছে কুকুরটি।কিছুক্ষণ পর এক সেনা জওয়ানকে ভিডিওর মধ্যে দেখা যায়। কয়েকজন ব্যক্তিকে এভাবে গান বাজাতে ও ভিডিও করতে দেখে সম্ভবত বিরক্ত হন সাধু। এরপর ধ্যান ভঙ্গ করে উঠে আসেন তিনি। তারপর ঐ এলাকা ছেড়ে চলে যান। সঙ্গে চলে যায় তার রহস্যময় কুকুরটিও।


সেই সাথে সাথে মহাভারতের কাহিনী নিয়েও আলোচনা শুরু হয়ে গেছে। কেননা পঞ্চপান্ডবদের মধ্যে যুধিষ্ঠীর সাথে স্বর্গে আহোরণ করছিল কুকুর।সেই হাজার হাজার বছরের গ্রন্থ “মহাভারত” আজও জাগ্রত হিমালয়ের মাইনাস ৪৫ ডিগ্রীতে।

ভারতীয় সেনা সুত্রে জানা গেছে, হিমালয়ের একটি দুর্গম অঞ্চলে গাড়ি নিয়ে টহলদারি চালাচ্ছিলেন সেনা জওয়ানরা। চারিদিকে শুধু ধু ধু সাদা বরফ। তারই মধ্যে আচমকা ঐ সাধুকে ঘুরতে দেখে ভিডিও করতে শুরু করেন এক জওয়ান রাজ মনোহর এস ডি। কিছুক্ষণ পর গাড়িটি সাধুর দিকে এগিয়ে নিয়ে গেলে তাঁর ধ্যানভঙ্গ হয়ে যায়।

সেনা জওয়ানদের কে চোখের সামনে দেখে খুব বিরক্তি প্রকাশ করে ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি দিতে দিতে এলাকা ছাড়েন সর্বস্বত্যাগী রহস্যময় সন্ন্যাসী।তাঁকে এলাকা থেকে চলে যেতে দেখে তাঁর পিছু পিছু চলে যায় রহস্যময় কুকুরটিও।

ভিডিওটি দেখে কেউ কেউ প্রশ্ন উত্থাপন করলেও বেশিরভাগ নেটিজেনই আশ্চর্য্য ভাবে অবাক হয়েছেন। কেউ কেউ আবার একে ভারতীয় সংস্কৃতি, ধ্যান, সংযমের ক্ষমতা ও যোগশক্তির প্রকাশ বলে মন্তব্য করেছেন।

ভারতীয় চলচ্চিত্র নির্মাতা ও মুক্তমনা বিবেক রঞ্জন অগ্নিহোত্রী তার টুইটারে ঐ রহস্যময় সন্ন্যাসীর চলে যাওয়ার ভিডিওটি শেয়ার করে লিখেছেন ”একবার আমার এক শিক্ষিকা বলেছিলেন, শিব একটা কাল্পনিক চরিত্র। তাঁর মতে, একজন মানুষের পক্ষে এভাবে শূণ্য তাপমাত্রায় বসবাস করা সম্ভব নয়। তিনি যদি আজও বেঁচে থাকতেন, তাঁকে এই ভিডিও দেখাতে পারতাম। তাহলে তিনিও বিস্ময়ে বলে উঠতেন, ওম্ নমো শিবায়।”

এই ভিডিও প্রকাশ‍্যে আসার পরপরই ভাইরাল হয়েছে ইন্টারনেটে। ইতিমধ্যে কয়েক লাখ মানুষ ভিডিওটি দেখে ফেলেছেন। এরকম আরও দুয়েকটি দুর্লভ ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক মাধ্যমে। নেটিজেনরা আশ্চর্য্য হয়ে গেছেন ঐ সাধুর কীর্তি দেখে। যে অমানুষিক ঠাণ্ডায় ভারতীয় সেনা জওয়ানরাও কাঁপতে থাকে, সেখানে সম্পূর্ন খালি গায়ে শুধু কৌপীন পরে কীভাবে ধ‍্যান করছেন ঐ রহস্যময় সাধু ও তার একমাত্র সঙ্গী একটি কুকুর!!