বৃহস্পতিবার, ২৫শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

 ক্যানিং-মৌখালি সংযোগকারী ব্রীজের কাজ চলছে দ্রুত গতিতে

News Sundarban.com :
জানুয়ারি ২৩, ২০২০
news-image

বিশ্লেষণ মজুমদার,ক্যানিং:

ক্যানিং মানেই সুন্দরবন,আর বিশ্বের বৃহত্তম বাদাবন সুন্দরবনের সিংহ দুয়ার প্রাচীন এই শহর ক্যানিং।তবে মাতাল ‘মাতলা’ নদীর জন্যই ক্যানিং মাতলা নামে পরিচিত ছিল।সুন্দরবনের বিদ্যাধরী,করতোয়া,আঠারো বাঁকী এই তিনটি নদীর সংযোগের মিলনস্থল মাতলা নদী সৃষ্টি হয়।আঠারো খানা নদীর বাঁক ছিল বলে সুন্দরবনের এই নদীর নাম হয় আঠারো বাঁকী।এমনকি ক্যানিং থেকে কলকাতা সল্টলেক হয়ে এই নদীর যোগাযোগ ছিল।তবে কালের পরিহাস অতিক্রমে করে প্রকৃতিকর নিয়মে নদী গুলি চড়া পড়ে আঠারো বাঁকী নদী ধ্বংস হয়ে যায়।আর বর্তমানে করতোয়া ও ক্যানিংয়ের মাতলা নদীর প্রায় সংকটময় একই অবস্থা।এই দুটি নদী প্রদীপের সোলতের মতন টিম টিম করছে।প্রতিদিন নদী দুটিতে চলছে জোয়ার ভাটা।আর জোয়ারের জলে পলি এসে জেগে উঠছে একের পর এক নদীর চড়া।ফলে যাতায়াতে ক্যানিং পশ্চিম এবং পূর্ব, বাসন্তী,ভাঙড়, উত্তর ২৪ পরগনার সন্দেশখালি সহ বিভিন্ন বিধানসভার লক্ষ লক্ষ মানুষজন চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়ে।বিগত বাম সরকারের ব্যর্থতায় সুন্দরবনের জল ও স্থলপথের যোগাযোগ ব্যবস্থা সম্পূর্ণ ভাবে ভেঙে পড়ে। নদীগুলির উপর ব্রীজ না হওয়ায় ফলে।২০১১ সালে রাজ্যে সরকার পরিবর্তনের পর মা মাটি মানুষের সরকারের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগে ও অনুপ্রেরণায় সুন্দরবনের সার্বিক উন্নয়নে একগুচ্ছ নতুন নতুন প্রকল্প গ্রহণ করে।এমনকি সুন্দরবনের উন্নয়নে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বার বার ছুটে এসেছেন সুন্দরবনের এই লবণাক্ত এলাকায়।সুন্দরবনের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে সুন্দরবন জুড়ে যেমন চলছে নদী গুলির উপর ব্রীজের কাজ,তেমনি সড়ক পথের কাজও।ফলে সুন্দরবনের প্রতিটি কোনায় মাটির রাস্তা প্রায় নেই বললেই চলে।রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগ ও অনুপ্রেরণা ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার সুন্দরবনের ক্যানিং-মৌখালি সংযোগস্থল করতোয়া নদীর উপর ব্রীজ নির্মাণের কাজ শুরু হয়।আর এই কাজ চলছে দ্রুত গতিতে।ফলে চলতি বছরের ডিসেম্বর মাসে এই ব্রীজের কাজ সম্পূর্ণ হয়ে যাবে।রাজ্যের সুন্দরবন উন্নয়ন দফতর প্রায় ৫৭ কোটি টাকা বরাদ্দ করে ব্রীজটি নির্মাণের জন্য।ব্রীজটি লম্বা ৫২৫ মিটার।তবে নদী পথ গুলির বিভিন্ন আকৃতি হওয়ায় জন্য ৩ টি ব্রীজের মাধ্যমে এই ক্যানিং মৌখালি সংযোগস্থল করতোয়া নদীর উপর ব্রীজ নির্মাণের কাজ হচ্ছে।ক্যানিং পূর্ব বিধানসভা কেন্দ্রের তাম্বুলদহ ১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের মৌখালিতে একটি ৭৫ মিটার লম্বা ব্রীজ তৈরি হচ্ছে এবং ক্যানিং পশ্চিম বিধানসভা কেন্দ্রের মাতলা ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের মিঠাখালি দাস পাড়ায় ৩২৫ ও ১২৫ মিটার লম্বা দুটি ব্রীজ নির্মাণের কাজ হচ্ছে।ফলে ৩ টি ব্রীজের মাধ্যমে তৈরি হচ্ছে ক্যানিং মৌখালি সংযোগস্থল করতোয়া নদীর উপর ব্রীজ।আর এই ব্রীজের কাজ সম্পূর্ণ হয়ে গেলে কলকাতা,উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার এবং রাজ্যের সমস্ত জেলা গুলির সঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থার মান উন্নয়ন ঘটবে।এমনকি খুব অল্প সময়ে কলকাতার সায়েন্স সিটিতে নিত্যযাত্রী থেকে শুরু করে সুন্দরবনের পর্যটকরা যাতায়াত করতে পারবেন।পাশাপাশি রেল পথ, কলকাতা বিমান পথেও যাতায়াতে উন্নয়ন ঘটবে।আর এই ব্রীজকে কেন্দ্র করে এক দিকে যেমন হাজার হাজার মানুষের কর্ম সংস্থান গড়ে উঠবে, তেমনি লক্ষ লক্ষ মানুষ উপকৃত হবে যাতায়াতে।মাতলা-২ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান উত্তম দাস বলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগ ও অনুপ্রেরণায় ক্যানিং মৌখালি সংযোগস্থল করতোয়া নদীর উপর ব্রীজ নির্মাণের কাজ দ্রুত গতিতে চলছে।চলতি বছরের ডিসেম্বর মাসে এই ব্রীজের কাজ সম্পূর্ণ হবে।প্রাকৃতিক কারণে নদী গুলিতে চড়া পড়ে যাচ্ছে।ফলে যাতায়াতে চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়তে হচ্ছে সাধারণ মানুষজনের।মাতলা ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে ২ টি ব্রীজ এবং তাম্বুলদহ ১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে একটি ব্রীজ নির্মাণের কাজ চলছে।এই ৩ টি ব্রীজে নিয়ে ক্যানিং মৌখালি সংযোগস্থল করতোয়া নদীর উপর ব্রীজটি মোট ৫২৫ মিটার লম্বা।ব্রীজটি চালু হয়ে গেলে লক্ষ লক্ষ মানুষ এবং সুন্দরবনের পযটকরা উপকৃত হবেন।রাজ্যের সুন্দরবন উন্নয়ন মন্ত্রী মন্টুরাম পাখিরা বলেন “রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে এবং তাঁর একান্ত উদ্যোগে প্রায় ৫৭ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ হচ্ছে ক্যানিং মৌখালি সংযোগস্থল করতোয়া নদীর উপর ব্রীজ।চলতি বছরে ডিসেম্বর মাসে এই ব্রীজের কাজ সম্পূর্ণ হয়ে যাবে।ফলে লক্ষ লক্ষ মানুষ উপকৃত হবে এবং গড়ে উঠবে হাজার হাজার মানুষের কর্মসংস্থান।পাশাপাশি খুব অল্প সময়ে পযটকরা চলে যেতে পারবে সুন্দরবনে।
অন্যদিকে এই ব্রীজের কাজ কতটা দ্রুততার সাথে হচ্ছে তা খতিয়ে দেখতে মঙ্গলবার ঘটনাস্থলে হাজীর হয়েছিলেন ক্যানিং পূর্বের বিধায়ক সওকাত মোল্ল্যা। এদিন তার সাথে উপস্থিত ছিলেন ক্যানিং ১ পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য তথা ক্যানিং ১ ব্লক যুবতৃণমূল সভাপতি পরেশ রাম দাস।
বিধায়ক সওকাত মোল্ল্যা ব্রীজের কাজ পরিদর্শন করার পর জানিয়েছেন “দ্রুততার সাথে ব্রীজের কাজ চলছে। ফলে আগামী ডিসেম্বর মাসের মধ্যে রাজ্যের মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরে সুন্দরবনবাসী এই ব্রীজ উপহার পাবেন। ”