সোমবার, ২২শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

নৃশংসতার শেষ কোথায়! ছটি কুকুরকে ইলেকট্রিক শক দিয়ে মারা হল বাঁশদ্রোণীতে

News Sundarban.com :
নভেম্বর ১৪, ২০১৯
news-image

নৃশংসতার শেষ কোথায়! ছটি কুকুরকে ইলেকট্রিক শক দিয়ে মারা হল বাঁশদ্রোণীতে। অভিযোগের তির প্রোমোটার চক্রের বিরুদ্ধে। জানা গিয়েছে, জমি দখলের জন্যই এভাবে ছটি কুকুরকে ইলেকট্রিক শক দিয়ে মেরেছে কেউ বা কারা! বাঁশদ্রোণীর পশুপ্রেমী মল্লিকা সরকার বাড়িতে পথ কুকুর ও বিড়ালদের আশ্রয়ের ব্যবস্থা করেছেন বহু বছর ধরে। ওই এলাকায় দুবিঘা জমির উপর বাড়ি রয়েছে মল্লিকা সরকারের। বাড়ির পিছনের দিকে আরও কিছুটা জায়গা রয়েছে। সেখানেই পথ কুকুরদের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করেন তিনি।

এমনিতেই তাঁর বিস্তর জমি-জায়গা। সেখানে পথকুকুর বা বিড়ালদের থাকা, খাওয়া, ঘুরে বেড়ানোর কোনও সমস্যা হয় না। কিন্তু এত জমি থাকাতেই যত বিপত্তি! মল্লিকা সরকার অভিযোগ করেছেন, তাঁর সেই জমিজমা হাতিয়ে নিতে চায় প্রোমোটারচক্র। আর জমি দখলের উদ্দেশ্যে তাঁর উপর নানা উপায়ে মানসিক অত্যাচার চালাচ্ছে সেই প্রোমোটারচক্র। এমনই অভিযোগ করেছিন তিনি।

মল্লিকা সরকার বলেছেন, ”১৯৯৫ সাল থেকে আমি পথকুকুরদের জন্য কাজ করি। ওরা অসুস্থ হলে ওদের চিকিতসা করানো থেকে শুরু করে ওদের খেতে দেওয়া, আশ্রয় দেওয়া, সবই করি। ২০১১ থেকে আমি বাড়িতে ওদের আশ্রয় দিতে শুরু করি। আমার পূর্বপুরুষরা আমার জন্য এই বিষয়-সম্পত্তি রেখে গিয়েছেন। আমাকে তো আলাদা করে ওদের জন্য কিছু করতে হয় না। যা রয়েছে সেটাকেই সংরক্ষণ করে রেখেছি। কিন্তু এখন দেখছি এই সম্পত্তিই যাবতীয় অশান্তির মূলে। আমাকে তো ওরা সরাসরি মেরে ফেলতে পারছে না। তাই যতরকমভাবে সম্ভব মানসিক অত্যাচার করে চলেছে। এবার এই ছটি কুকুরকে ইলেকট্রিক শক দিয়ে মেরে ফেলল। এর আগেও কুকুর, বিড়ালদের বিষ খাইয়ে মেরেছে। এভাবে আমাকে এবং আমার পোষ্যদের সরিয়ে ফেলতে পারলে ওদের স্বার্থসিদ্ধি হবে।” ঘটনার তদন্তে নেমেছে নেতাজিনগর থানার পুলিস।