বুধবার, ২৫শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

বাতাসে বাড়ছে বিষ,গড়ে ৩.৮ বছর কম বাঁচছে বাঙালি

News Sundarban.com :
অক্টোবর ৩১, ২০১৯
news-image

বাতাসে বাড়ছে বিষ। গড়ে ৩.৮ বছর কম বাঁচছে বাঙালি। এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ করল এনার্জি পলিসি ইন্সস্টিটিউট, শিকাগো বা EPIC. তাঁদের দাবি, কলকাতা সহ পশ্চিমবঙ্গের জেলাগুলিতে বায়ূদূষণের মাত্রা ছাড়িয়েছে অনেক আগেই। গড় আয়ু কমেছে তার জেরে। কলকাতার থেকেও অবস্থা খারাপ অনেক জেলার।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সমীক্ষা অনুযায়ী, ধূলিকনার মাত্রা 10 μg/m3 (Micrograms per cubic meter) এর নীচে হলে পরিস্থিতি ঠিক আছে। তার বেশি হলেই গড়বড়। যে গড়বড়টি ঘটিয়ে ফেলেছে শুধু বাংলা নয়, গোটা গাঙ্গেয় উপকূলীয় অঞ্চলই। পাঞ্জাব, হরিয়ানা, চণ্ডিগড়, দিল্লি, উত্তরপ্রদেশ, বিহার এবং এ রাজ্যের অবস্থা সবথেকে খারাপ। এই কটা রাজ্যে দূষণের জেরে গড় আয়ু কমছে হু হু করে। এই কটা রাজ্যের হিসেব করলে গড়ে ৭ বছর করে কম বাঁচছে মানুষ। অথচ এই এলাকাতেই দেশের প্রায় ৪০ শতাংশ মানুষের বাস।

কতটা পরিস্থিতি ভয়াবহ, তা অতীতের সঙ্গে তুলনা করলেই বোঝা যাবে। ১৯৯৮ সালে এই গাঙ্গেয় উপকূলবর্তী রাজ্যগুলির গড় আয়ু কমে দাঁড়িয়েছিল ৩.৭ বছর। অথচ তারপর থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ৭২ শতাংশ বেড়েছে দূষণের মাত্রা। আজ একটি সাংবাদিক বৈঠকে EPIC INDIA-র সিনিয়র অ্যাসোসিয়েট ডিরেক্টর, কমিউনিকেশনস আশির্বাদ এস রাহা জানান, বাংলার দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হওয়ার কারণ আছে। কারণ সব জেলারই অবস্থা খুব খারাপ। কীরকম?

এয়ার কোয়ালিটি লাইফ ইনডেক্স বিশ্লেষণ করেছে সংস্থাটি। তার সমীক্ষা বলছে, দূষণের ঠেলায় কলকাতায় গড় আয়ু কমেছে ৩.৪ বছর। যা ৯৮ সালে ছিল ১.১ বছর। কলকাতায় দূষণ বেশি, জেলায় কম বলে সান্তনা খোঁজেন, তাঁরা জেনে রাখুন, মালদার মতো জেলায় ৪.৮ বছর করে মানুষ কম বাঁচছে। পুরুলিয়ার ক্ষেত্রে ৪.৫ বছর। মুর্শিদাবাদ, দুই দিনাজপুর বা বীরভূমে সংখ্যাটা ৪.৩। তুলনামূলক ভালো দশা দক্ষিণ ২৪ পরগনার। সেখানে গড় আয়ু কমেছে ৩.১৫ বছর।

ন্যাশনাল ক্লিন এয়ার প্রকল্প হাতে নিয়েছে কেন্দ্র। সেই মেনে অন্তত ২৫ শতাংশ দূষণ যদি কমিয়ে ফেলা যায়, তাহলে ১.৩ বছর গড় আয়ু বাড়ানো যাবে ভারতীয়দের। কিন্তু পরিস্থিতি ক্রমশই খারাপ হচ্ছে। বিশেষ করে বাংলার তো বটেই।