বুধবার, ২৫শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ক্যানিংয়ে বিজেপির সংকল্প যাত্রা

News Sundarban.com :
অক্টোবর ২২, ২০১৯
news-image

সারাদেশে ২ অক্টোবর গান্ধী জয়ন্তী পালনের মধ্যদিয়ে সংকল্প যাত্রা শুরু করেছিলেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব।আর সেই গান্ধী জয়ন্তীকে হাতিয়ার করে সংকল্প যাত্রা শুরু হল ক্যানিং মহকুমা এলাকায়।রবিবার বিকালে ক্যানিংয়ের সাতমূখী বাজার থেকে বিজেপির সংকল্প যাত্রার সূচনা করেন দক্ষিণ ২৪ পরগণা পূর্ব জেলার জেলাসভাপতি সুনীপ দাস।পাশাপাশি এই সংকল্প যাত্রায় সাতমূখী বাজার থেকে ক্যানিং বাসষ্ট্যান্ড পর্যন্ত প্রায় সাত কিলোমিটার রাস্তা পায়ে হেঁটে পদযাত্রাও করেন। পদযাত্রা শেষে এদিন সন্ধ্যায় এক পথসভাও করেন বিজেপির জেলা নেতৃত্ব।

বিজেপির জেলা নেতৃত্বের দাবী আগামী এক বছরের মধ্যে বাংলা কে হিংসা ও দুর্নীতিমুক্ত করা হবে।নেতৃত্বের আরো দাবী পশ্চিবঙ্গে হিংসা সব থেকে বেশী এবং হিংসায় জর্জরিত।যে দেশে গান্ধী জন্ম গ্রহণ করেছিলেন সে দেশে এমন হিংসা আর অরাজকতা চলতে পারেনা।
উল্লেখ্য বিজেপির এই যাত্রার মূল উদ্দেশ্য মোদি সরকারের নানান প্রকল্পের সাথে গান্ধীজির চিন্তা ভাবনার কতটা মিল সেটাই দেখানো। স্বচ্ছতা,দুর্নীতি,গ্রামীণ সমাজের উন্নয়ণের বিষয় গুলি নিয়ে গান্ধীজি যা বলেছিলেন তার সাথে কেন্দ্রীয় সরকারের বহু প্রকল্পের সাযুয্য রয়েছে সেটাই আগামী ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত প্রচার করবে বিজেপি।
সংকল্প যাত্রার মিছিল কিংবা ক্যানিং বাসষ্ট্যান্ডের পথসভায় দলীয় নেতাকর্মীদের ভীড় ছিল চোখে পড়ার মতো।
অন্যদিকে বিজেপির দলীয় সুত্রে খবর বিভিন্ন সময়ে বিপদে পড়ায় দলীয় কর্মীদের পাশে কোন নেতৃত্ব না দাঁড়ানো, দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার সাংগঠনিক অদক্ষতা এবং অন্যান্য কারণেই সারা জেলা জুড়ে বিজেপি নিশ্চিহ্ন হতে চলেছে।
এ প্রসঙ্গে দক্ষিণ ২৪ পরগণা পূর্ব জেলা সভাপতি সুনীপ দাস বলেন “যারা বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে গেছেন বা যাচ্ছেন,তারা তৃণমূলে থেকে তোলাবাজ,দুর্নীতি গ্রস্থ রপ্ত করেছিল। বিজেপি দলের মধ্যে সে করতে না পেরে সুযোগ নিয়ে বিভিন্ন দলে নাম লেখাচ্ছে। এ ঘটনা নিয়ে বিছেপির কোন মাথা ব্যাথা নেই।বিজেপির সংগঠন প্রতিদিনই বাড়ছে এবং বেড়ে যেতেই থাকবে।”
এদিন ক্যানিংয়ে অনুষ্ঠিত সংকল্পযাত্রায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় সংখ্যালঘু মোর্চার সাধারণ সম্পাদক আর্শাদ আলম,অমৃতা ব্যানার্জী সহবিশিষ্টরা।