সোমবার, ২২শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

৩৫ কেজি কয়েন জন্মদিনে মাকে একখানা বড়সড় রেফ্রিজেরেটর উপহার

News Sundarban.com :
অক্টোবর ১৭, ২০১৯
news-image

এক, দুই, পাঁচ ও দশ টাকার কয়েন জমানো শুরু হয়েছিল ১২ বছর আগে। ১৭ বছরের যুবক রাম সিং চেয়েছিল, জন্মদিনে মাকে একখানা বড়সড় রেফ্রিজেরেটর উপহার দেবে। যেমন ভাবনা তেমন কাজ। ১২ বছর ধরে সে টাকা জমাচ্ছে। ২০০৭ সাল থেকে আজ পর্যন্ত রাম সিং জমিয়েছে ৩৫ কেজি কয়েন। আর সেই ৩৫ কেজি কয়েন নিয়ে রাম সিং সোজা হাজির হয় রেফ্রেজেরেটর-এর দোকানে। আর সেদিনই রাম সিং খবরের কাগজে বিজ্ঞাপন দেখেন, একটি সংস্থার রেফ্রিজেরটরে ছাড় দেওয়া হচ্ছে। তাই আর দেরি করেনি রাম সিং। সোজা হাজির হয় দোকানে।

১৩ হাজার পাঁচশো টাকা নিয়ে শোরুমে হাজির হন রাম সিং। কিন্তু পুরো টাকাটাই শোরুম মালিককে তিনি দেন কয়েনে। প্রথমে শোরুম মালিক ব্যাপারটা বুঝতে পারেননি। পরে তিনি রাম সিংয়ের সঙ্গে কথা বলে ঘটনাটা জানতে পারেন। ২০০৭ সালে রাম সিংয়ের বয়স ছিল পাঁচ বছর। সেই সময় থেকে মায়ের জন্মদিনে উপহার দেওয়ার জন্য অল্প অল্প করে টাকা জমাতে শুরু করে রাম সিং। এভাবেই প্রায় ১২ বছর ধরে প্রতিদিন অল্প অল্প করে কয়েন জমাতে থাকে সে। ১২ বছর পর মোট কয়েনের ওজন গিয়ে দাঁড়ায় ৩৫ কেজিতে। তার পরেই ফ্রিজ কেনার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলে রাম সিং। মায়ের জন্মদিনেই সমস্ত কয়েন নিয়ে পৌঁছে যায় ফ্রিজের শোরুমে।

শোরুমে যাওয়ার আগে অবশ্য শোরুমের মালিককে ফোন করে কয়েনের মাধ্যমে দাম মেটানোর কথা জানায় রাম সিং। ফ্রিজের শোরুমের মালিকও তাতে রাজি হয়ে যান। কিন্তু ফ্রিজের গোটা দামটাই যে কয়েনে মেটানো হবে, তা বুঝতে পারেননি শোরুম মালিক। কয়েনের ব্যাগ নিয়ে শোরুমে রাম সিং হাজির হতেই চোখ কপালে ওঠে শোরুম মালিকের।

পছন্দের ফ্রিজের দাম ছিল ১৫,০০০ টাকা। এদিকে দেখা যায় রাম সিংয়ের কাছে মাত্র ১৩,৫০০ টাকাই আছে। কিন্তু রাম সিংয়ের সব কথা শুনে অভিভূত হয়ে যান শোরুম মালিক হরিকৃষ্ণাণ খাতরি। ১৩,৫০০ টাকাতেই ফ্রিজ বিক্রি করতে রাজি হয়ে যান তিনি। প্রায় ৪ ঘণ্টা ধরে সমস্ত কয়েন গুনে টাকা শোরুম মালিকের হাতে তুলে দেন তিনি।

মায়ের জন্য স্বপ্নের ফ্রিজ কিনতে পেরে যারপরনাই খুশি হয়ে যান রাম সিং। আনন্দে বিহ্বল তাঁর মাও। আবেগঘন গলায় রাম সিং বলেন, “মা অনেকদিন ধরেই নতুন ফ্রিজ কেনার কথা বলছিল। তাই আমি টাকা জমাতে শুরু করি।” শুধু তাই নয়, মাকে মাঝে জমানো টাকা থেকে কিছুটা দিয়ে সাহায্যও করত সে।