বৃহস্পতিবার, ৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

 ২৬ তম বছরে পা দিল বকখালির পল্লীসমাজ এর দুর্গাপুজো

News Sundarban.com :
অক্টোবর ১, ২০১৯
news-image

বাঙালির সেরা উৎসব হল এই দুর্গাপুজো। এই দুর্গাপূজাকে ঘিরে আগমনের বার্তা আকাশে-বাতাসে। মহালয়ার পূর্ণ দিন থেকেই সূচনা এই উৎসব আবেগের। প্রতিটি বাঙালির দীর্ঘ এক বছরের প্রতীক্ষা করে এই উৎসবের। এই উৎসবটি হল মন ভালো রাখার একটা খোরাক। হাতেগোনা আর মাত্র কয়েকদিন। প্রতিটি মন্ডপে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি চরমে। প্রতিটি পুজো প্যান্ডেলে থাকে নানারকম জাকজমক  ও জৌলুস। ঠাকুর সাবেকি হলেও প্রতি বছরের মত এবছরও কোনও না কোনও কিছুর আদলে মণ্ডপ তৈরি করা হচ্ছে। নামখানা ব্লকের ফ্রেজারগঞ্জ গ্রাম পঞ্চায়েতের বকখালি পল্লীসমাজ দুর্গোৎসব কমিটির উদ্যোক্তা গোবিন্দ প্রামাণিক গোবিন্দ প্রামানিক জানিয়েছেন, আমরা নিজেরা চাঁদা দিয়ে পুজো করি। এবার আমাদের পুজো ২৬ তম বছরে পা দিল। বিশ্ব উষ্ণায়ন রোধে দেবী দুর্গার আগমন এই থিম দিয়েই তৈরি করা হচ্ছে আমাদের মণ্ডপ। বাঁশ, কাঠ, মাটি, জরি সামগ্রী দিয়ে তৈরি। প্রতিমা। ঠাকুর গড়ছেন নলিলাক্ষ্য মাইতি । আলোকসজ্জায় থাকছেন ইন্দ্রপুরী লাইট। থিম তৈরি করছেন অকাজ ( অতনু, কাঞ্চন, জগন্নাথ) নামের কলকাতার একটি সংস্থা। হারিয়ে যাওয়া গ্রামীণ সংস্কৃতি কুমোর, কামার, ছুতোর, তাঁতিদের শিল্প নৈপুণ্যকে ফিরিয়ে আনার জন্য এবারের আমাদের পুজোয় থিম হিসেবে নতুন করে তুলে ধরা হয়েছে। সেই সঙ্গে থাকছে প্লাস্টিক বর্জন নিয়ে অভিনব প্রয়াস। বর্জিত প্লাস্টিক সংগ্রহ করা হয়েছে এবং দূষণ নিয়ন্ত্রণ রোধে সেই প্লাস্টিক জাতীয় দ্রব্য সংগ্রহ করে পুজো মণ্ডপের কাজে ব্যবহার করা হয়েছে। এছাড়া পূজোর দিন গুলোতে থাকছে বস্ত্র বিতরণ আর্থ মানুষের জন্য প্রসাদ খিচুড়ি বিতরণ। দশমী একাদশী দিন আগত দর্শনার্থীদের জন্য পুজো প্রাঙ্গণে থাকবে বিভিন্ন ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। উদ্যোক্তারা জানান, এবারের মন্ডপ তৈরিতে আমাদের বাজেট দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির কারণে ৮ লক্ষ টাকা ছাড়িয়ে যেতে পারে।