শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

টাকা দেখে রাজনীতি কোরো না: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

News Sundarban.com :
আগস্ট ২৮, ২০১৮
news-image

তৃণমূল ছাত্র পরিষদের প্রতিষ্ঠা দিবসের সমাবেশ মঞ্চ থেকে কড়া ভাষায় BJP-র সমালোচনা করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পিটিয়ে মারার ঘটনা থেকে রাজ্যের টাকা কেটে নেওয়া বিভিন্ন বিষয় উঠে আসে তাঁর বক্তব্যে। জয়া দত্ত অপসারিত হওয়ার পর থেকে খালি পড়ে দলের ছাত্র সংগঠনের সর্বোচ্চ পদ। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে TMCP-র নতুন কমিটি গঠন করা হবে বলে তিনি ঘোষণা করেছেন। এবিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পুরোনো তৃণমূল ছাত্র পরিষদ কর্মীদের নিয়ে একটি কমিটি গঠনের কথাও তিনি জানান।
লবি করার দরকার নয়, কাজ করুন। আপনাদের কাজই হবে পরিচয়। ছাত্র পরিষদের প্রতিষ্ঠা দিবসের সমাবেশ থেকে রাজ্যের ছাত্র-যুবদের প্রতি বার্তা দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
দেশ ভেঙে ফেলার জঘন্য ষড়যন্ত্র চলছে, তৃণমূল ছাত্র পরিষদের পতাকা অনেক দাম। জীবন অনেকদিন পর্যন্ত এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। টাকা দিয়ে চরিত্র গঠন হয় না, টাকা-মাটি, মাটি-টাকা, টাকার বিকল্প আছে, জীবনের বিকল্প নেই। নেতাজি টাকা দেখে রাজনীতি করেননি। টাকা দেখে রাজনীতি কোরো না।
ভবিষ্যতে তোমরাই পঞ্চায়েত-পৌরসভা চালাবে। কাজই তোমার পরিচয়, লড়াইয়ের সঙ্গে টাকা-পয়সার তুলনা চলে না। যারা লড়াই করেন তাদের কেউ আটকাতে পারে না। জীবনে লড়াইটাই সবকিছু, আমরা কাজ করতাম সেটা সবাই জেনেছিল, আমাদের সময়ে আমরা অত বড় রাজনীতিবিদদের বাড়ি যেতাম না। ভালো কাজ করলে আপনাকে এমনিই লোক ডেকে নেবে, কাজ করতে গেলে লবি করতে নেই।আমার দলের ছাত্র নেতাদের বক্তব্য শুনে ভালো লাগল।
মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায় বলেন, সারা দেশে অঘোষিত জরুরি অবস্থা চালাচ্ছে বিজেপি। বিজেপিকে আক্রমণ করে মমতা বলেন, জঙ্গলমহলে দুটো আসন পেয়ে রাজ্যে খুনোখুনি শুরু করেছে ওঁরা। জঘন্য ষড়যন্ত্র চলছে, কুৎসা চলছে।পিটিয়ে মারার নামে আদিবাসী, সংখ্যালঘুদের উপরে অত্যাচার করছে, প্রতিদিন মানুষ খুন করছে, BJP ধর্মের নামে অপসংস্কৃতি করছে। এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। মানুষের মহাজোট গড়তে হবে।
আগে নিজের মাতৃভূমিকে ভালোবাসতে হয়। বাংলা দিয়েই আমরা বিশ্বকে পথ দেখাব। নিজের মাতৃভূমিকে ভুলবেন না
ভারতের প্রতিষ্ঠানগুলিকে শেষ করে দিয়েছে বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকার। এই তো তোমাদের রাজনীতি। বিদেশ থেকে টাকা এনে ভোট কেনা হচ্ছে।
ছাত্র পরিষদের পুরোনো কর্মীদের নিয়ে একটি কমিটিও করে দিচ্ছি, যাতে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া যায়। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে ছাত্র পরিষদের নতুন কমিটি আমিও একদিন নেতাজির বই পড়তাম। হতাশা কাটাতে আমার কথাঞ্জলি পড়ুন।জীবনে অভিজ্ঞতার প্রয়োজন রয়েছে। অহংকার কোরো না। ২০১৯ সালের পর BJP-র মুখে লিউকোপ্লাস্ট লাগিয়ে দেবে। একদিনে ভালো কাজ করা যায় না, সময় লাগে। সবসময় ইতিবাচক ভাবনাচিন্তা করতে হবে। সার্ভিস উইথ স্মাইল। ভালো ভাবব, ভালো করব। সব সময় ভালো চিন্তা কর। আমাদের সবকিছু আছে। হতাশ হতে হবে না
পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রামে কাজ করুক ছাত্র সংসদগুলি। তাঁদের রক্ষা করতে হবে
বাবা-মাকে খুশিতে রেখ। এরাজ্যে যা কাজের সুযোগ রয়েছে তাতে বাইরে ভিক্ষে করতে যেও না কেউ।
সমাজের সবার জন্য প্রকল্প রয়েছে, কেউ বাকি নেই। বিনামূল্য চিকিৎসা পাওয়া যায় রাজ্যে। ২ টাকা কিলো চাল পাওয়া যায়। রুপোশ্রী, সবুজশ্রী এত প্রকল্প।এখন কলেজ পর্যন্ত ছাত্রীরা কন্যাশ্রী পাচ্ছে।

আমাদের নেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যাকে জেলে রেখে দিয়েছিল। ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে জবাব দেব BJP-কে। এরা জানে না BJP আগামীদিন থাকবে না, BJP এখন এজেন্সিকে নির্দেশ দিচ্ছে রেড করার জন্য। কেউ প্রতিবাদ করলে জেলে ভরে দেওয়া হচ্ছে।
দেশে জঘন্য সরকার চলছে। আমি সেই ছাত্র যৌবন চাই যারা টাকার কাছে মাথা নোয়াবে না। বাংলার মেধা আছে, কুৎসা করলে জবাব দেবে, আমাদের ছাত্র নেতারা জবাব দেবে, ভুল জিনিস মাথায় নেবেন না। রোজ টুইটারে, ফেসবুকে ভুয়ো ছবি দেওয়া হয়। টাকা না কেটে দেখাক, আমাদের টাকা দিতে হবে না।
কেন্দ্রীয় সরকার যেন রাজ্যকে বাবার টাকা দিচ্ছে। রাজ্যের টাকা কেটে নিচ্ছে। বিদেশ থেকে টাকা আসছে। এখন টাকা লুটে কাজ করছে।
অটলজির অস্থি নিয়ে রাজনীতি করছে। এত নির্লজ্জ দল আমি আগে দেখিনি, এসে দেখ একবার, এখানে বাঘের বাচ্চারা বসে আছে। বলছে বাংলায় NRC করবে, আমি বলছি একবার হাত দিয়ে দেখ। দেশের চরিত্র বদলে দেওয়া হচ্ছে। নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্মত্য সেনকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে, জায়গায় নাম বদলে দিচ্ছে। নেতাজি, রবীন্দ্রনাথ, গান্ধিজি,নজরুলের ইতিহাস বদলে দেবে। খাওয়ার অধিকার নেই, মানুষের কথা বলার অধিকার নেই, এটা ইমারজেন্সির ঠাকুরদাদা।
সাংবাদিকদের ভয় দেখাচ্ছে, চাকরি খেয়ে নিচ্ছে। ন্যাশনাল চ্যানেলগুলিকে কিনে নিয়েছে। উত্তরপ্রদেশে এনকাউন্টারের নামে যাকে তাকে খুন করছে, মুখে হরি হরি আর পিছনে মানুষ খুন করি। বড় বড় হরিদাস জন্ম নিয়েছে এদেশে
কে কী খাবে তুমি ঠিক করে দেবে?
BJP ঠিক করে দেবে কাকে পুজো করব? ধর্ম আলাদা আলাদা, উৎসব সবার। BSF-র কাজ পাচার রোখা, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব ওদের নয়। টাকা ছড়িয়ে, এজেন্সি দিয়ে ভয় দেখাচ্ছে। CPI(M)-র হার্মাদ আজ হয়েছে BJP-র জল্লাদ। আমি খুনোখুনি চাই না, এটা বরদাস্ত করব না। জঙ্গলমহলের কিছু জায়গায় BJP অশান্তি করছে। আজ রাজ্যের শান্তি বিরাজ করছে। দেশে টাকার দাম কমে গেছে, অশান্তির দাম বেড়ে গেছে।
এদিন এনআরসি নিয়ে তিনি বলেন, ভারতীয়দের তাড়ালে ছেড়ে কথা বলব না। এখানেও এনআরসি চালু করবে। এত সহজ নয়, এখানে বাঘের বাচ্চারা আছে। সাহস থাকলে বাংলার এনআরসি করে দেখান, ছাত্র সমাবেশ থেকে বিজেপিকে চ্যালেঞ্জ ছুড়লেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সবার জন্মের সার্টিফিকেট চাওয়ার আগে নিজের জন্মের সার্টিফিকেট দেখাতে হবে, চরম হুঁশিয়ারি দিয়ে রাখলেন তিনি। বাংলা পথ দেখায়, শান্তির পথ দেখায়, সভ্যতার পথ দেখায়। BJP-র চ্যালেঞ্জ নিচ্ছি, বাংলা ভয় পায় না।