মঙ্গলবার, ৯ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

বিরোধী শূন্য জীবনতলা,চলছে উন্নয়ণের আবির খেলা

News Sundarban.com :
এপ্রিল ১৩, ২০১৮
news-image

মনোনয়নের শেষ দিনেই ক্যানিং ২ ব্লকে কার্যত সব আসনেই জয় নিশ্চিত হয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেসের। বুধবার স্কুটিনির পর বেশকিছু বিরোধী প্রার্থী ও নির্দল প্রার্থীদের মনোনয়ন বাতিল হওয়ার কারণে দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলার ক্যানিং ২ ব্লক কার্যত বিরোধী শুন্য। গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে শুরু করে পঞ্চায়েত সমিতি এমনকি জেলা পরিষদের আসন ও বিনা প্রতিদন্ধিতায় জয়লাভ করে তৃণমূল কংগ্রেস। আর সেই জয়ের আনন্দে বৃহস্পতিবার সকালে জীবনতলা বাজারে দলীয় পতাকা নিয়ে চলে বিজয় মিছিল।

দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার বিভিন্ন গ্রাম পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি এবং জেলা পরিষদের বহু আসনে প্রার্থী দিতে পারেনি বিরোধী বা কোন নির্দল। উপরন্তু অনেকে মনোনয়ন দিলেও স্কুটিনি পদ্ধতির পর অনেক প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়ে যায়। সেই কারণে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার বিস্তীর্ণ এলাকার বহু আসনই তৃণমূল কংগ্রেস বিনা প্রতিদন্ধিতায় জিতে যায়। এরমধ্যে ক্যানিং ২ ব্লকের ১৪৬টি গ্রামসভার সিট, ২৭ টি পঞ্চায়েত সমিতির সিট ও তিনটি জেলা পরিষদের সিটের মধ্যে দুটিতে বিনা প্রতিদন্ধিতায় জয়লাভ করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। সমগ্র ক্যানিং ২ ব্লকের মধ্যে শুধুমাত্র একটি জেলা পরিষদের আসনে বিজেপি প্রার্থী দেওয়ায় সেই আসনেই ভোট হবে। এই ব্লকের ন’টি গ্রাম পঞ্চায়েত ও পঞ্চায়েত সমিতি তৃণমূল কংগ্রেসের দখলে চলে আসার আনন্দে বৃহস্পতিবার সকালে জীবনতলা বাজার থেকে জয়ী প্রার্থীদের নিয়ে বিজয় মিছিল বের করেন স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব। তাসা ব্যাঞ্জ সহযোগে এই বিজয় মিছিল বিস্তীর্ণ এলাকা প্রদক্ষিণ করে। এ বিষয়ে ক্যানিং পূর্ব বিধানসভার বিধায়ক শওকাত মোল্লা বলেন, “ গত পাঁচ বছরে এলাকায় যা উন্নয়ন হয়েছে তা দেখে বিরোধীরা প্রার্থী দেওয়ার সাহস দেখায় নি। শুধু এই ক্যানিং ২ ব্লক নয় ক্যানিং পূর্ব বিধানসভার ও বেশীরভাগ আসনে আমাদের প্রার্থীরা বিনা প্রতিদন্ধিতায় জয়ী হয়েছেন”। এ বিষয়ে বিরোধীরা কটাক্ষ করে বলেছেন, “রাস্তার মোড়ে মোড়ে যেভাবে বোমা বন্দুক নিয়ে উন্নয়ন দাঁড়িয়ে তাতে মানুষ প্রানভয়ে আমাদের প্রার্থীরা মনোনয়ন জমা দিতে পারেনি। তৃণমূলের এই জয় লজ্জার জয়”।