বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

মহম্মদ শামি-তদন্তে কলকাতায় এলেন বিসিসিআইয়ের দুর্নীতি দমন শাখার প্রধান নীরজ কুমার

News Sundarban.com :
মার্চ ১৭, ২০১৮
news-image

মহম্মদ শামির বিরুদ্ধে স্ত্রী হাসিন জাহানের আনা অভিযোগের তদন্তে নিজেই কলকাতায় এলেন বিসিসিআইয়ের দুর্নীতি দমন শাখার প্রধান নীরজ কুমার। শনিবার লালবাজারেই ডেকে পাঠানো হয় হাসিনকে। সেখানে তাঁর সঙ্গে দীর্ঘক্ষণ কথা বলেন নীরজ কুমার ও দুর্নীতি দমন শাখার অন্যান্য আধিকারিকরা। তথ্যপ্রমাণ খতিয়ে দেখেন। লালবাজারে হাসিনের সঙ্গে দীর্ঘক্ষণ কথা। ক্রিকেটারের দাদার বিরুদ্ধে হাসিনের ধর্ষণের অভিযোগের তদন্তে উত্তরপ্রদেশে গেল কলকাতা পুলিশ।হাসিনের আনা ধর্ষণের অভিযোগের তদন্ত করতে এদিন উত্তরপ্রদেশের আমরুহাতে শামির পৈতৃক বাড়িতে পৌঁছয় কলকাতা পুলিশের তদন্তকারী দল। এই বাড়িতেই শামির দাদা তাঁকে ধর্ষণ করেছিলেন বলে অভিযোগ হাসিনের। পরিবারের সদস্য ও প্রতিবেশীদের বয়ান নেবেন তদন্তকারীরা।
শামির স্ত্রী হাসিনের প্রকাশ করা একটি অডিও ক্লিপ ঘিরেই দানা বাধে বিতর্ক। যার প্রেক্ষিতে ওঠা দুর্নীতির অভিযোগের তদন্তের জন্য দুর্নীতিদমন শাখাকে নির্দেশ দেয় বোর্ডের প্রশাসনিক কমিটি। হাসিনের অভিযোগ, দুবাইয়ে এক পাক-মহিলার কাছ থেকে প্রচুর অর্থ নিয়েছিলেন মহম্মদ শামি। অন্যদিকে, শামির দাবি, মহম্মদ ভাই নামে এক ব্যক্তি সেই অর্থ পাঠিয়েছিলেন। অন্যদিকে, দুবাইয়ের যে হোটেলে ১৭ থেকে ১৯ ফেব্রুয়ারি শামি ছিলেন বলে হাসিনের দাবি, সেই হোটেলের লবি ও করিডরের দু’দিনের সিসিটিভি ফুটেজ ও হোটেলের রেজিস্ট্রেশন সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য জানতে চেয়ে শনিবার আলিপুর আদালতে আবেদন জানায় লালবাজার। সেই আবেদন মঞ্জুর হয়েছে। লালবাজার দ্রুত আদালতের নির্দেশের কপি পাঠিয়ে দেবে দুবাইয়ের হোটেল-কর্তৃপক্ষকে। দুবাইয়ের হোটেল কর্তৃপক্ষ নথি দিলে জানা যাবে, কবে, কখন, কীভাবে হোটেল বুকিং করা হয়েছিল। শামির নামে রুম বুক হয়েছিল কি না। ক’টি রুম বুকিং হয়েছিল। এজন্য অর্থই বা কে দেন। শামি হোটেলে চেক ইন, চেক আউট করেছিলেন কি না। তাঁর সঙ্গে কেউ ছিল কি না। সেই সমস্ত তথ্য পরিষ্কার হবে বলে মনে করছে লালবাজার।