শুক্রবার, ১৯শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

আরও নামবে রাজ্যের তাপমাত্রা

News Sundarban.com :
জানুয়ারি ৮, ২০১৮
news-image

শীত কেন থিতু হচ্ছে না এ নিয়ে হাজারো প্রশ্ন উঠছিল। উত্তরের ঠাণ্ডা হাওয়ার পথে এসেও বাধ সাধছিল কখনও পশ্চিমী ঝঞ্ঝা তো কখনও এসে দাঁড়াচ্ছিল ঘূর্ণাবর্ত।সমস্ত বাধা সরে গিয়ে জোড় ঠাণ্ডা পড়েছে নতুন বছরের শুরু থেকেই। জোড় ঠাণ্ডায় কাবু রাজ্যের সমস্ত জেলা। আরও নামবে তাপমাত্রা। এমনই জানাল আলিপুর আবহাওয়া দফতর। পাঁচ বছরের সেরা সময় কাটিয়ে জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহের শীত রেকর্ড গড়েছে। শীতে প্রেমীদের জন্য আরও খুশির খবর। হাওয়া অফিস জানাচ্ছে আরও নামতে পারে রাজ্যের সহ কলকাতার তাপমাত্রা। অর্থাৎ গোটা জানুয়ারিতে রেকর্ড গড়ার দিকে এগোচ্ছে বাংলার শীত।
উত্তর থেকে দক্ষিণ বেশীরভাগ জেলার তাপমাত্রার পারদ দশের নীচে। কোনও কোনও স্থানে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা পাঁচেও ঠেকেছে। আর পাহাড়ের তাপমাত্রা ০ ছাড়া কথা বলছে না।
বরফ না পেলেও স্বাভাবিক নিয়ম মেনে জোড় ঠাণ্ডা রয়েছে দার্জিলিং, কার্শিয়ং , কামিম্পংয়ের মতো পাহাড়ি জেলাগুলিতে। এই পরিস্থিতি আগামী দিনেও চলবে বলেই জানাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। কোনও রকম বাঁধা বিপত্তি নেই তাই সানন্দে রাজ্যে প্রবেশ করছে উত্তুরে হাওয়া সঙ্গে যোগ দিচ্ছে পাহাড় থেকে আসা ঠাণ্ডা বরফের হাওয়াও। এতেই ব্যাপক ঠাণ্ডা অনুভূত হচ্ছে রাজ্যে। কলকাতাতেও আজকের তাপমাত্রা ১০.৬ থেকে কমে ১০.৫ এসে ঠেকেছে। সর্বোচ্চ ২৩.৭। সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন দুই তাপমাত্রাই স্বাভাবিকের চেয়ে দুই থেকে তিন ডিগ্রির নিচে। রাজ্যের অন্যন্য অঞ্চলের তাপমাত্রাও থেকেছে নিচের দিকেই। আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে এদিন দক্ষিণবঙ্গের পানাগড়ের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস সর্বোচ্চ ২৩.১। শ্রীনিকেতনের তাপমাত্রা ছিল সর্বনিম্ন ৬.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস সর্বোচ্চ ২৩.৬। বর্ধমানের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৮.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস সর্বোচ্চ ২৪ ডিগ্রি। বাঁকুড়া সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৮.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস সর্বোচ্চ ২৬.৫। উত্তরবঙ্গের মালদহের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৫.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস সর্বোচ্চ ১৬ ডিগ্রি। কোচবিহারের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৩.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস সর্বোচ্চ ১৭.৪ ডিগ্রি। জলপাইগুড়ি তাপমাত্রা সর্বনিম্ন ৩.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে এসে ঠেকেছে।