বৃহস্পতিবার, ২৩শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

প্রত্যন্ত সুন্দরবনে নাবালিকা বিয়ে বন্ধে অগ্রণী ভুমিকা চাইল্ড লাইনের

News Sundarban.com :
ডিসেম্বর ৩১, ২০১৭
news-image

সুভাষ চন্দ্র দাশ

ওরা সকলেই দিনরাত পরিশ্রম করেই অন্যান্য পরিবারের মুখে হাসি ফোটাতেই ব্যস্ত। দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলার কোন চাইল্ড ছিল না। কিন্তু ২০০০ সালে জেলার পাথরপ্রতিমা থানার “দিগম্বরপুর অঙ্গীকার” নামক একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা গড়ে ওঠে শিশুদের সুরক্ষার জন্য। অতঃপর জনাকয়েক যুবক-যুবতীর উদ্যোগে এবং পাথরপ্রতিমার “দিগম্বরপুর অঙ্গীকার” এর সহযোগিতায় ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বর মাসে শিশু সুরক্ষা জন্য গড়ে ওঠে চাইল্ড লাইন।ক্যানিং মহকুমা চাইল্ড লাইন গড়ে ওঠার পর থেকে প্রত্যন্ত সুন্দরবন সহ জেলার ক্যানিং,জীবনতলা,বাসন্তী এবং গোসাবা ব্লক এলাকায় শিশুদের ঊপর অত্যাচার,নির্যাতন,নাবালক-নাবালিকা বিবাহ,শিশু শ্রমিক,পাচার বন্ধ করে সতর্কতা এবং সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা হিসাবে কাজ করে চলেছে। বর্তমানে ক্যানিং চাইল্ড লাইনে পাঁচজন কাজ করেন। দীপঙ্কর মিদ্দে,বান্টী মুখার্জী,মমতা রায়,পিংকী বেরা,রীনা পাল নিজেদের পরিবার পরিজনদের কথা চিন্তা না করেই রাতদিন পরিশ্রম করে ইতিমধ্যে জেলার ক্যানিং মহকুমা এলাকায় ২০১৭ সালে শতাধিক নাবালক-নাবালিকার বিয়ে বন্ধ করে এবং দুই ২৪ পরগণা জেলা,হাওড়া,নদীয়া জেলার ছয়জন শিশু উদ্ধার করে তাদের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে।  হারিয়ে যাওয়া শিশু উদ্ধার,নাবালক নাবালিকা বিবাহ বন্ধ করে দিয়ে সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে পিছিয়ে পড়া সমাজকে অনেকাংশ অগ্রগতির দিশা দেখিয়ে চলেছে। এই চাইল্ড লাইনের ভয়েই প্রত্যন্ত সুন্দরবন সহ ক্যানিং মহকুমা এলাকায় নাবালক-নাবালিকা বিবাহ অনেকাংশ কমে গেছে।
বিশিষ্ট শিক্ষক যাদব চন্দ্র বৈদ্য বলেন “প্রত্যন্ত সুন্দরবন অঞ্চল সহ ক্যানিং মহকুমার অন্যান্য প্রান্তে সাধারণ মানুষের আর্থিক দৈনতা রয়েছে। অার এই আর্থিক দৈনতার সুযোগ নিয়ে বেশ কিছু অসাধু লোকজন পিছিয়ে পড়া পরিবারের লোকজনদের কে বুঝিয়ে অর্থের প্রলোভন দেখিয়ে নাবালক-নাবালিকাদের নিয়ে গিয়ে দিল্লী,চেন্নাই,গুজরাট সহ ভিনরাজ্যে বিক্রি করে দেয়।  এইসব নাবালক-নাবালিকারা জীবনের মুলস্রোত থেকে হারিয়ে গভীর অন্ধকারাচ্ছন্নতে পাড়ি দেয়। ক্যানিং চাইল্ড লাইন যেভাবে নাবালক-নাবালিকা বিবাহ বন্ধ করে চলেছে তাতে করে সমাজের মঙ্গল এবং সেই সব আর্থিক অস্বচ্ছতা পরিবার গুলির মঙ্গল। এই কাজে সমাজের সর্বস্তরের মানুষ বা কোন সংস্থা যদি এগিয়ে আসে তাহলে আগামী দিনে উন্নততর সমাজ গড়ে উঠবে।”
বিশিষ্ট শিক্ষক তথা সমাজসেবী অমল নায়েক বলেন “আগে কোন চাইল্ড লাইন ছিল না। ফলে অনেক সময় ইচ্ছা থাকলে ও কিছু করা সম্ভব ছিল না। বর্তমানে ক্যানিং এ চাইল্ড লাইন হয়ে সুন্দরবনের মানুষ উপকৃত হয়েছেন এবং শিশুদের ও সুরক্ষার ব্যাপারে অনেকটাই অগ্রগতি হয়েছে। ”