শুক্রবার, ২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

মাঝরাতে ট্রাক থামিয়ে চালকদের চা খাওয়ালেন পুলিশ কর্মীরা

News Sundarban.com :
ডিসেম্বর ১৪, ২০১৭
news-image

পথ নিরাপত্তা বাড়াতে অন্য ভূমিকায় অবতীর্ণ হলেন পুলিশ কর্মীরা। পরিসংখ্যান বলছে সব থেকে বেশি দুর্ঘটনা ঘটে রাতের অন্ধকারেই। রাতেই ট্রাক চালকরা রাজ্যের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ট্রাকে মালপত্র নিয়ে যাতায়াত করেন। অনেক সময় গাড়ি চালাতে চালাতে ঘুমিয়েও পড়েন তারা। ফলে ঘটে যায় দুর্ঘটনা। এই ধরনের দুর্ঘটনার প্রকোপ কমাতে নতুন উদ্যোগ নিলেন পুলিশ কর্মীরা। দক্ষিণ ২৪ পরগণার বারুইপুর পুলিশ জেলার অন্তর্গত ক্যানিং থানার পুলিশের উদ্যোগে মাঝরাতে রাস্তার মাঝে ট্রাক থামিয়ে ট্রাক চালক ও খালাসিদের জল, চা ও বিস্কুট খাওয়ানো হল। মাঝরাতে পুলিশি হেনস্থার পরিবর্তে পুলিশের হাত থেকে চা, জল, বিস্কুট পেয়েও যেন বিশ্বাসই করতে পারছেন না ট্রাক চালকরা। তবে ক্যানিং থানার পুলিশের এই উদ্যোগে খুশি রাতের এই ট্রাক চালকরা। ঘড়িতে সময় রাত সাড়ে বারোটা হবে। ওসি ক্যানিং আশিস দাস ও এসডিপিও ক্যানিং দেবী দয়াল কুন্ডুর নেতৃত্বে বিশাল পুলিশ বাহিনী হাজির হন ক্যানিং বাসন্তী রোডের মাতলা সেতুর কানেক্টরে। প্রাথমিক ভাবে সকলের দেখে মনে হয়েছিল নিশ্চয়ই কোন তল্লাশি অভিযানের উদ্দ্যেশ্যে জড় হয়েছেন পুলিশ কর্মীরা। কিন্তু সম্বিত ফিরল কিছুক্ষণের মধ্যেই। এই রাস্তা দিয়ে আসা ও যাওয়া ট্রাক গুলিকে একের পর এক রাস্তায় দাঁড় করাতে থাকেন পুলিশ কর্মীরা। রাতে একসাথে এতো পুলিশ কর্মীরা তাদের গাড়ি দাঁড় করাচ্ছে দেখে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন ট্রাক চালকরাও। তারা ভাবেন নিশ্চয়ই পুলিশি হেনস্থার শিকার হতে হবে তাদের। কিন্তু হেনস্থা করা তো দুরস্থান গাড়ির প্রয়োজনীয় কাগজ, ড্রাইভিং লাইসেন্স কিছুই না চেয়ে উল্টে পুলিশ কর্মীরা জল, চা, বিস্কুট এগিয়ে দিলেন ড্রাইভারদের দিকে। যা দেখে প্রাথমিক ভাবে কার্যত তাজ্জব বেনে যান ট্রাক চালকরা। পুলিশ কর্মীদের এহেন আচরণ যেন বিশ্বাসই করতে পারছিলেন না তারা। তবে যাই হোক শীতের মাঝরাতে গরম গরম চা পেয়ে তাতে চুমুক দিয়ে একটা আলাদা মজা নিলেন প্রত্যেকেই। এরফলে দীর্ঘক্ষণ পথ চলতে চলতে যে একঘেয়েমি ও ঘুমঘুম ভাব এসেছিল সেটা ও কেটে গেলো।