শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

বিষ্ণু দেবী মঠ পরিদর্শনে প্রতিদিন ৫০ হাজার জনকে অনুমতি

News Sundarban.com :
নভেম্বর ১৪, ২০১৭
news-image

‘বিষ্ণু দেবী মঠ’ হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের কাছে পবিত্র ও পুণ্যস্থান হিসেবে পরিচিত। এর অবস্থান ভারতের জম্মু-কাশ্মীরে। এখানে পুণ্যার্থীরা ভিড় করেন স্রষ্টার সান্নিধ্য লাভের আশায়।

এই মঠ তদারকি করে দ্য ন্যাশনাল গ্রিন ট্রাইবুন্যাল। ২০১০ সালে দেশটির পরিবেশ, বন ও অন্যান্য প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষায় আইন প্রণয়নের মাধ্যমে দ্য ন্যাশনাল গ্রিন ট্রাইবুন্যল প্রতিষ্ঠা করা হয়।

সোমবার দ্য ন্যাশনাল গ্রিন ট্রাইবুন্যাল জানায়, প্রতিদিন জম্মু-কাশ্মীরের বিষ্ণু দেবী মঠ পরিদর্শনে ৫০ হাজার পুণ্যার্থীকে অনুমতি দেওয়া হবে।

গ্রিন কোর্ট জানিয়েছে, একদিনে দর্শনার্থীদের প্রবেশে সীমা নির্দিষ্ট করা হয়েছে। ফলে মঠগামী অতিরিক্ত দর্শনার্থীদের অর্ধকুড়ি বা কাটরা অপেক্ষা করতে হবে।

 

বিষ্ণু দেবী মঠ
মঠের কাঠামোগত সক্ষমতা বিবেচনায় অতিরিক্ত পুণ্যার্থীদের কষ্ট লাঘবে এমনটা করা হচ্ছে। মঠ কমপ্লেক্সের ভেতরে সব নতুন নির্মাণ স্থগিত রয়েছে। পদব্রজকারীদের জন্য বিষ্ণু দেবী মঠের নতুন পথ আগামী ২৪ নভেম্বর উন্মক্ত করা হবে বলেও জানায় গ্রিন কোর্ট।

এ মঠ ভারতের জনপ্রিয় তীর্থস্থানগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি। প্রতিবছর কয়েক লাখ পুণ্যার্থী এখানে আসেন। কিন্তু গত কয়েক বছরে এ সংখ্যা নিম্নগামী। ২০১৭ সাল থেকে এখানে পুণ্যার্থীদের প্রবেশ সংখ্যা সীমাবদ্ধ করা হচ্ছে। চলতি বছর ২১ অক্টোবর পর্যন্ত এ মঠে আসেন ৬৯ লাখ ৩৪ হাজার ৩৭৭ জন। গত বছরে একই সময়ে ২ লাখ ৭০ হাজার বেশি দর্শনার্থী এটা পরিদর্শন করেন।

এর আগে মঠে সন্ত্রাসী হামলা ও প্রাকৃতিক দুযোর্গ সংঘটিত হয়েছে বলে জানিয়েছেন জম্মু-কাশ্মীর রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অজয় নান্দা। বলেন, গত দুই বছরে ১৫ থেকে ২০ শতাংশ দর্শনার্থী কমে গেছে। বারবার সন্ত্রাসী হামলা এবং ২০১৪ সালে বন্যাজনিত বিপর্যয়সহ বিভিন্ন বিপর্যয় এখানে ঘটেছে।