বৃহস্পতিবার, ৩০শে মার্চ, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

পুতিনের বিরুদ্ধে লড়বেন ‘রুশ সুন্দরী’

News Sundarban.com :
অক্টোবর ২১, ২০১৭
news-image

‘প্যারিস হিলটন’ নামেই রাশিয়ায় পরিচিত কিসিনিয়া সবচাক। বরাবরই খবরের শিরোনামেও থাকেন তিনি। ফের সংবাদমাধ্যমে এই ‘রুশ সুন্দরী’কে নিয়ে তোলপাড়। অবশ্য এবারের কারণটা ভিন্ন। ক্ষমতাধর প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বিরুদ্ধে আগামী নির্বাচনে লড়ার ঘোষণা দিয়েছেন কিসিনিয়া। রুশ রাজনীতিতে এ নিয়ে জোর আলোড়ন।

দু’দশক ধরে রাশিয়ায় একচ্ছত্র কর্তৃত্ব চলছে পুতিনের। আসছে মার্চের নির্বাচনেও নিরঙ্কুশ আধিপত্য নিয়ে তিনিই বিজয়ী হবেন—বিশ্লেষকেরা বলছেন এমনটাই।

আর সেখানেই আপত্তি ৩৫ বছরের কিসিনিয়ার। ক্রেমলিনে একই মুখ ‘বারবার দেখতে দেখতে ক্লান্ত’ কিসিনিয়া এর প্রতিকার চান। সেজন্যই আসছে নির্বাচনে পুতিনের বিরুদ্ধে লড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। কিসিনিয়ার দাবি, বিরোধী নেতা অ্যালেক্সি নাভালনির সমর্থনও রয়েছে তার পেছনে।

রাজনীতির পরিবেশেই বেড়ে উঠেছেন কিসিনিয়া। সেন্ট পিটার্সবার্গের সাবেক মেয়র আনাতোলি সবচাকের মেয়ে তিনি। আনাতোলির হাত ধরেই রাজনীতিতে এসেছিলেন পুতিন। নব্বইয়ের দশকের শুরুতে তিনিই সিটি হলের দায়িত্বভার তুলে দিয়েছিলেন পুতিনকে। ২০০০ সালে মারা যান আনাতোলি। তারপর দীর্ঘ সংগ্রামের মাধ্যমে এতদূর এসেছেন পুতিন।

কিসিনিয়ার মা লুদমিলা নারুসোভাও রুশ পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষের সদস্য। সুতরাং এমন পরিবারের মেয়ে রাজনীতিতে আসবেন; তা যেন ছিল অবধারিতই।

 

গত বুধবার এক রুশ টিভিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে কিসিনিয়া জানিয়েছেন, দেশের শীর্ষ পদে লড়ার পূর্ণ অধিকার তার রয়েছে। পুতিনের রাজত্ব শেষ করার জন্যই সক্রিয় রাজনীতিতে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। কিসিনিয়ার ভাষ্য, ‘১৮ বছর বয়সে যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ি, সেবার পুতিন প্রেসিডেন্ট হলেন। সে বছর যারা জন্মেছিল, তারা এবার ভোট দেবে। ভেবে দেখুন একবার।’

অবশ্য কিসিনিয়ার এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে ক্রেমলিন। তবে এর মধ্যেও ‘অন্য’ গন্ধ পাচ্ছেন বিরোধীরা।

বিরোধী নেতা অ্যালেক্সি নাভালনির বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এনেছে ক্রেমলিন। এবার ভোটেও লড়তে পারবেন না তিনি। যদিও দুর্নীতির অভিযোগ ক্রেমলিনের সাজানো বলে উড়িয়ে দিয়েছেন নাভালনি। তিনি আবার কিসিনিয়াকে সমর্থনের কথাও অস্বীকার করেছেন। তার মতো বিরোধীদের আশঙ্কা, ‘স্বচ্ছ ভোট’ দেখিয়ে আদতে নিজের পথ সুগম করার কথাই ভাবছেন পুতিন। সেক্ষেত্রে আরও একবার ক্রেমলিনে তার ‘রাজত্ব’ করা সহজ হবে।

‘ডম-২’ রিয়্যালিটি টিভি শো উপস্থাপনার মাধ্যমে প্রচারের আলোয় এসেছিলেন কিসিনিয়া। এমনিতে ‘পেজ থ্রি’তে তার ছবি দেখতেই অভ্যস্ত রুশরা। ইনস্টাগ্রামে এই ‘রুশ সুন্দরীর’ ফলোয়ার ৫০ লাখেরও বেশি।

এবার ভোটে লড়ার সিদ্ধান্ত নিলেও ২০১২ সাল থেকেই সক্রিয়ভাবে পুতিন সরকারের বিরোধিতা করে আসছেন কিসিনিয়া। পুতিনকে হারিয়ে রুশ রাজনীতিতে তিনি কোন পরিবর্তন আনতে পারবেন কি-না—তা জানতেই এখন অপেক্ষা! সূত্র: ব্লুমবার্গ ও নিউইয়র্ক টাইমস