বৃহস্পতিবার, ৩০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতার ওয়েবসাইটে জেসিয়া ইসলামের নাম

News Sundarban.com :
অক্টোবর ১০, ২০১৭
news-image

মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতার অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে সংযুক্ত করা হয়েছে মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশের জেসিয়া ইসলামের নাম।

চীনে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ৬৭তম এ প্রতিযোগিতায় অন্য দেশুগলোর প্রতিযোগীদের পাশাপাশি বাংলাদেশের জেসিয়া ইসলামের ছবিও প্রকাশ করা হয়েছে ওই ওয়েবসাইটে।

মিস ওয়ার্ল্ড অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে ‘কনটেস্টেন্টস’ অপশনে ক্লিক করলে তৃতীয় সারিতে বাংলাদেশের লাল সবুজের পতাকা ও জেসিয়ার ছবি দেখা যাচ্ছে।

তার ছবির ওপর ক্লিক করে দেওয়া যাচ্ছে ভোট। মঙ্গলবার রাত সোয়া ৯টা পর্যন্ত এখানে ০ দশমিক ৩৬ শতাংশ ভোট পয়েন্ট দেখা গেছে। ওয়েবসাইটটির হোমপেজেও প্রতিযোগীদের নাম, ছবি ও দেশের নাম রাখা হয়েছে।

বাংলাদেশের জেসিয়াসহ এখন পর্যন্ত ১১৭টি দেশের প্রতিযোগী চূড়ান্ত হয়েছেন প্রতিযোগিতার ৬৭তম আসরে। এ তালিকায় যুক্ত হতে পারে আরও চারটি দেশ।

আগামী ২০ অক্টোবর চীনের উদ্দেশে রওনা দেওয়ার কথা রয়েছে জেসিয়ার। এর মাধ্যমে ১৬ বছর পর এই আয়োজনে দেখা যাবে লাল-সবুজের কোনও সুন্দরীকে।

আগামী ৩১ অক্টোবর শিমেলং ওশান কিংডমে হবে এবারের আসরের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। নানান রঙের পোশাকে সেজে আসা ৫০০ পারফর্মারের পরিবেশনা ও প্রতিযোগীদের প্যারেড দেখতে হাজির থাকবেন ১০ হাজার দর্শক। আগামী ১৮ নভেম্বর স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে রাত ১০টায় পর্যন্ত মিস ওয়ার্ল্ড ২০১৭ এর চূড়ান্ত পর্ব অনুষ্ঠিত হবে। তখনই্ জানা যাবে বিশ্বসুন্দরীর মুকুট কার মাথায় উঠবে।

নানা বির্তকের পর অবশেষে গত ৪ অক্টোবর জান্নাতুল নাঈম এভ্রিলের নাম বাতিল করে জেসিয়া ইসলামকে ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ ঘোষণা করা হয়। ওইদিন রাজধানীর ওয়েস্টিন হোটেলে আয়োজক সংস্থা অন্তর শোবিজ ও অমিকন এন্টারটেইনমেন্টের এক সংবাদ সম্মেলনে এতথ্য জানানো হয়।

বিচারক প্যানেলের সভাপতি বিবি রাসেল জেসিয়ার নাম ঘোষণা করেন। ওই সময় সংবাদ সম্মেলনে আয়োজকরা জানান, বিচারকদের নতুন রায়ই চূড়ান্ত। এভ্রিল (জান্নাতুল নাঈম) নন, মূল আসরে বাংলাদেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করবেন জেসিয়া ইসলাম। এ নিয়ে আর কোনো বিতর্কের সুযোগ নেই।

এর আগে গত ২৯ অক্টোবর রাতে রাজধানীর বসুন্ধরা ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটির নবরাত্রি মিলনায়তনে জান্নাতুল নাঈম এভ্রিলকে বিজয়ী ঘোষণা করে ফল জানানো হয় প্রথমবার অনুষ্ঠিত ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ আসরের। এরপর থেকেই নানা সমালোচনা ও প্রশ্নের মুখে পড়েন আয়োজকেরা। অভিযোগ ওঠে, বিচারকদের রায়ে নয় আয়োজকদের পছন্দেই জান্নাতুলকে বিজয়ী করা হয়।

‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ এর ফল ঘোষণার সময় শুরুতে শীর্ষ ১০ প্রতিযোগীর মধ্যে জান্নাতুল সুমাইয়া হিমিকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। তবে কিছুক্ষণের মধ্যেই আয়োজকরা জানান, তিনি হয়েছেন দ্বিতীয় রানারআপ- এরপর জান্নাতুল নাঈম এভ্রিলকে বিজয়ী হিসেবে ঘোষণা করা হয়। জেসিয়া ইসলাম তখন হয়েছিলেন দ্বিতীয় রানারআপ। পরে তাকে প্রথম রানারআপ ঘোষণা করা হয়।

পরে বেশ কয়েকটি অনুসন্ধানী পর্যবেক্ষণে বেরিয়ে আসে এভ্রিল ছিলেন আয়োজক প্রতিষ্ঠান অন্তর শোবিজের পছন্দের। বিচারকদের নম্বর তোয়াক্কা না করেই এভ্রিলের নাম ঘোষণা করা হয়। বিজয়ী ঘোষণার দুইদিন পর থেকেই শোনা যাচ্ছিল ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ নির্বাচিত হওয়া জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল বিবাহিত। ২০১৩ সালে ২১ মার্চ তিনি বিয়ে করেছিলেন। আড়াই মাস সংসারের পর ডিভোর্স হয়ে যায় তার।

কয়েকদিন ধরে বিয়ের এ খবর অস্বীকার করলেও এক পর্যায়ে ফেসবুক লাইভে এভ্রিল বিয়ের কথা স্বীকার করেন। তিনি বলেন, ওটা ছিল বাল্যবিয়ে। তিনি এ বিয়ে মানেননি। পরে ৪ অক্টোবর জান্নাতুল নাঈম এভ্রিলকে বাদ দিয়ে নতুন করে জেসিয়া ইসলামকে মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ ঘোষণা করা হয়।