শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

পুলিশ অফিসারকেও হত্যা, অভিযুক্ত গ্রেফতার

News Sundarban.com :
সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৭
news-image

দিল্লির কুখ্যাত দুষ্কৃতী সোনু দরিয়াপুর গ্রেফতার। দশটিরও বেশি খুনের মামলায় অভিযুক্ত সে। এক পুলিশ অফিসারকেও হত্যা করেছে সে। এবছরের শুরুতে প্রতিদ্বন্দ্বী আর এক গ্যাংস্টারকে খুন করে। এছাড়াও তোলাবাজি, অপহরণ সংক্রান্ত একাধিক মামলা রয়েছে। সরকার তার মাথার দাম ৫ লক্ষ টাকা ধার‌্য করেছিল। বৃহস্পতিবার একটি হুন্ডাই আই-২০ গাড়িতে চড়ে নারেলায় বন্ধুর সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিল সোনু। গোপনসূত্রে আগেই পুলিশের কানে খবর পেঁছে গিয়েছিল। তাই এলাকা ঘিরে রেখেছিল তারা। বন্ধ করে দেওয়া হয় বেরনোর সব রাস্তা। তবে পুলিশ দেখে ঘাবড়ানো তো দূর, উল্টে গাড়ি থেকে বেরিয়ে এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করে সোনু। রাজ্য পুলিশও পাল্টা জবাব দেয়। শেষ পর‌্যন্ত তাকে পাকড়াও করা সম্ভব হয়। তার কাছ থেকে দুটি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার হয়েছে। অপরাধ জগতে দীর্ঘদিনের ওঠাবসা সোনুর। এবছর ৩০ এপ্রিল গ্যাংস্টার মনু দরিয়াপুর, তার নিরাপত্তায় মোতায়েন দুই পুলিশকর্মী এবং দুই সাগরেদের ওপর হামলা চালায় সোনু। তাতে মনু ও তার দুই সাগরেদের মৃতু্য হয়। অবশ্য তাদের মধ্যে চিরকাল শত্রুতা ছিল না। বরং ছোটবেলা থেকে বন্ধুত্ব ছিল। অপরাধ জগতে হাতেখড়িও একসঙ্গে। তবে মনু তার খুড়তুতো বোনকে বিয়ে করলে মেজাজ হারায় সোনু। ২০০৬ সালে মনু এবং নিজের খুড়তুতো বোনকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় সে। স্বামী-স্ত্রী রক্ষা পেলেও, তাদের গাড়ির চালকের মৃতু্য হয়। তারপর থেকেই মনুকে পুলিশি নিরাপত্তা দেওয়া হয়। সেই ঘটনায় তিনবছর জেলে থাকার পর প্যারোলে মুক্তি পেয়ে গিয়েছিল সোনু। তবে একেবারেই শোধরায়নি। প্যারোলে থাকাকালীনই মনুর বড় দাদাকে খুন করে সে। পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে গত কয়েকবছরে একাধিকবার নেপাল, হরিয়ানা, পাঞ্জাব, হিমাচলপ্রদেশে গিয়ে লুকিয়ে ছিল সে। ধরা পড়ার ভয়ে মোবাইল ফোন পর‌্যন্ত সঙ্গে রাখত না। ফেসবুক এবং হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে নিজের সাগরেদদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখত। বৃহস্পতিবার সকালে হিমাচলপ্রদেশ থেকে নারেলা এসে পেঁছেছিল সে। সেখানেই তাকে পাকড়াও করে পুলিশ।