শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ছাত্র-ছাত্রীদের বিনামূল্যে বিশ্বকাপ দেখাবে রাজ্য সরকার

News Sundarban.com :
সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৭
news-image

বিশ্বকাপ শুরু হতে বাকি আর মাত্র ২২দিন। এই উপলক্ষ্যে সেজে উঠেছে ছটি মাঠ। তার মধ্যে যুবভারতী স্টেডিয়াম দেখে মুগ্ধ ফিফাও। টুর্নামেন্ট ডিরেক্টর জেভিয়ার সেপ্পির কথায়, যুবভারতীকে দেখে পাঁচতারা হোটেল মনে হচ্ছে আমার। তাই এখন শুধু বল গড়ানোর অপেক্ষা। এরই মধ্যে অভিনব এক উদ্যোগ নিল পশ্চিমবঙ্গ সরকার। প্রতিদিন পাঁচ হাজার ফ্রি পাস দেবে রাজ্য সরকার।

স্টেডিয়াম হস্তান্তর করা হয়ে গিয়েছে। গ্যালারি, ভিআইপি, ভিভিআইপি, হসপিটালিটি ও মিডিয়া বক্স, নতুন করে খেলার মূল মাঠ ও দুটি প্র‌্যাকটিস মাঠ, ড্রেসিংরুম তৈরি ছাড়াও গোটা স্টেডিয়ামের সৌন্দর‌্যায়ন, পথ ও সাবওয়ে সবকিছুই নতুন করে সাজানো হয়েছে। স্টেডিয়াম নিয়ে উচ্ছ্বসিত সেপ্পিও। তিনি বলেন,স্টেডিয়ামের কাজের জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে ধন্যবাদ। দুবছর আগের যুবভারতীর সঙ্গে আজকের যুবভারতীকে মেলানো যাবে না। যুবভারতী স্টেডিয়ামের কাজে আমরা খুশি। এখন থেকে ২৮ অক্টোবর পর‌্যন্ত স্টেডিয়ামের দায়িত্ব আমাদের।

তবে স্টেডিয়ামের কাজ সম্পূর্ণ করেই থেমে নেই রাজ্যের ক্রীড়াদফতর। গ্যালারি ভরানোর জন্যও চিন্তা ভাবনা শুরু করে দিয়েছে তারা। স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রীরা যাতে খেলা দেখার সুযোগ পান সেব্যাপারে উদ্যোগ নিয়েছে ক্রীড়াদফতর। যুবভারতীতে ১০টি খেলা হবে। এই ১০ টি ম্যাচের প্রত্যেকটিতে ৫০০০ ফ্রি-পাসের ব্যবস্থা করছে তারা।
শিক্ষা দফতরের এক উচ্চপদস্থ কর্তা এখবর জানিয়ে বলেছেন, প্রত্যেক ম্যাচেই ফ্রি পাসের ব্যবস্থা করা হবে ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য। ৮ অক্টোবর প্রথম ম্যাচ সল্টলেক স্টেডিয়ামে। প্রথম ম্যাচ ছাড়াও বাকি ম্যাচগুলোতেও ৫ হাজার ফ্রি পাস দেওয়া হবে স্কুল, কলেজের পড়ুয়াদের।
তবে এই ফ্রি পাস পাওয়ার ক্ষেত্রে নাকি একটি অন্য শর্তও রয়েছে। যে সব ছাত্রছাত্রীরা ফুটবল খেলে কিংবা অন্য কোনও খেলার সঙ্গে জড়িয়ে আছে, তারাই পাবে পাস। এই পাঁচ হাজার ফ্রি টিকিটের মধ্যে স্কুলগুলো পাবে ২০০০ আর কলেজগুলো ২০০০ করে টিকিট। ৫০০ টিকিট দেওয়া হবে মাদ্রাসার ছাত্রছাত্রীদের। আর ৫০০ পলিটেকনিকের ছাত্রছাত্রীদের। একটি আলাদা বক্স থাকবে, যেখানে বসে খেলা দেখবে শুধুই পড়ুয়ারা। শিক্ষা দফতরের ওই কর্তার কথায়,স্কুল কর্তৃপক্ষ ছাত্রছাত্রীদের নাম পাঠাবে শিক্ষা দফতরে। যাদের দেওয়া হবে এই ফ্রি পাস। আমরা চাই, রাজ্যের ছেলেমেয়েরাও আন্তর্জাতিক মানের ফুটবল ম্যাচ দেখার সুযোগ পাক। আশা করি, পড়ুয়ারা প্রতিটি মুহূর্ত উপভোগ করবে।
ফিফা তালিকায় ভারতবর্ষ কত নম্বরে? সুনীল ছেত্রী, জেজে লালপেকলুহাদের চেনেন বিশ্ব ফুটবলের কতজন? এ সব প্রশ্নের উত্তরে ভারতীয় হিসেবে আপনাকে যতই অস্বস্তিতে পড়তে হোক না কেন, বিশ্ব ফুটবলের সেরা মহড়ার জন্য যে উত্তেজনায় ফুটছে পশ্চিমবঙ্গ সহ সারা ভারত, সেটা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।