শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

রাম রহিম জেলে যৌনকাতরতায় অসুস্থ হয়ে পড়ছেন

News Sundarban.com :
সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৭
news-image

১৫ বছর আগের দুই ধর্ষণ মামলায় সম্প্রতি ২০ বছরের সাজা হয় ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের বিতর্কিত ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিম সিংয়ের। জেলের অভ্যন্তরে ১৫ দিন হতে চলেছে তার। এরই মধ্যে বারবার নাকি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন তিনি। শরীর পরীক্ষা করে জেলের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, আসলে রাম রহিম প্রচণ্ড যৌনকাতর, যে কারণে নানান শারিরীক সমস্যা হচ্ছে তার।

জেলে যাওয়ার পর থেকে রাম রহিমের যৌন কীর্তি প্রকাশ হতে থাকে। তার ডেরা সাচ্চা সৌদায় তল্লাশি চালিয়ে রীতিমতো যৌন সাম্রাজ্যের দেখা মিলেছে। জানা গেছে, দিনের পর দিন সাধ্বীদের সঙ্গে যৌনতায় লিপ্ত হতেন তিনি। এজন্য ছিলো রুটিনও। পিতা কি মাফি- এই ছিল কোড। এই কথা কোনো সাধ্বীকে বলা মানে, ওইদিন রাম রহিমের যৌনসঙ্গী হতে হবে তাকে। রাজি না হলে সাধ্বীদের খুন করা হতো বলেও অভিযোগ উঠেছে। তল্লাশিতে ডেরায় কনডম ও গর্ভনিরোধক সরঞ্জামের পাহাড় পাওয়া গেছে।

ডেরায় জলের নিচে যৌনতা উপভোগের জন্য সেক্স গুহাও বানিয়ে ছিলেন রাম রহিম। নিজের দত্তক মেয়ে হানিপ্রীতের সঙ্গেও তার যৌন সম্পর্ক ছিল বলে অভিযোগ হানিপ্রীতের সাবেক স্বামীর। জেলে হানিপ্রীতকে সঙ্গে রাখার গোঁ ধরেছিলেন এই ভণ্ড ধর্মগুরু। জেল কর্তৃপক্ষ তাতে রাজি হয়নি।

এদিকে রাম রহিম জেলের মধ্যে বারবার অসুস্থ হয়ে পড়লে তার শারীরিক অবস্থা পরীক্ষা করেন জেলের চিকিৎসকরা। তারা জানান, রাম রহিম অতিমাত্রায় যৌনকাতর। চিকিৎসা বিজ্ঞানের পরিভাষায় যাকে বলা হয়, নিমফোম্যানিয়াক। এদিকে জেলে যৌন ইচ্ছা পূরণের কোনো উপায় নেই। যে কারণে উইথড্রয়াল সিনড্রম হিসেবে তার শারীরিক অস্বস্তি হচ্ছে।

তারা আরও জানান, রাম রহিম মাদকাসক্ত কি-না তা এখনও বোঝা যাচ্ছে না। তবে তিনি বিদেশ থেকে আনা সেক্স টনিক খেতেন বলে জানা গেছে। জেলে এসব কিছুই পাচ্ছেন না বলে ক্রমাগত কাতর হয়ে পড়ছেন তিনি। ইতিমধ্যে তার চিকিৎসা শুরু করা হয়েছে। সূত্র: ইন্ডিয়া টুডে।