বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সাংবাদিক হত্যার পিছনে কারা রয়েছে, চলছে তদন্ত

News Sundarban.com :
সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৭
news-image

বিশিষ্ট সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশকে গত মঙ্গলবার বেঙ্গালুরুতে তাঁর বাড়ির বাইরে গুলি করে খুন করেছে আততায়ীরা। হত্যার পিছনে কারা রয়েছে, তা জানতে তদন্ত চলছে। সারা দেশ এই নির্ভীক সাংবাদিকের হত্যার নিন্দায় মুখর। দেশের বিভিন্ন স্থানে চলছে বিক্ষোভও। এরইমধ্যে সোশাল মিডিয়ায় নিখিল দধিচ নামে এক ব্যক্তি প্রয়াত সাংবাদিক সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য করেছেন। তিনি গৌরীর মৃতু্যর নিন্দায় যাঁরা সরব হয়েছেন, তাঁদেরকেও গালিগালাজ করেছেন।
গৌরীকে খুনের ঘটনার পর টু্যইটারে নিন্দায় মুখর হন নেটিজেনরা। তাঁদের গালিগালাজ করে তীব্র আক্রমণের মুখে পড়েন নিখিল দধিচ নামে ওই ব্যক্তি। ওই টু্যইটার অ্যাকাউন্টটি খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ফলো করেন বলে জানার পর, তাঁদের ক্ষোভ চরমে ওঠে। নেট জগতের বাইরেও এব্যাপারে অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়ে। শুধু প্রধানমন্ত্রীই নন, বিজেপির শীর্ষস্তরের প্রায় এক ডজন নেতা ওই ব্যক্তির অ্যাকাউন্টটি ফলো করেন। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন গিরিরাজ সিংহ, শ্রীপদ নায়েক, ভূপেন্দ্র যাদব, সতীশ উপাধ্যায়, পীযূষ গোয়েল, নরেন্দ্র সিংহ তোমর, অশ্বিনী উপাধ্যায়, মনোজ তিওয়ারির মত নেতারা।
তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে অবশেষে আপত্তিকর টু্যইটটি ডিলিট করেন নিখিল দধিচ। এরপর আবার কংগ্রেস নেতা দিগ্বিজয় সিংহ ও স্বরাজ অভিযানের যোগেন্দ্র যাদবকে নিশানা করে তিনি সাফাই দেন, তাঁর টু্যইটের সঙ্গে গৌরী লঙ্কেশের হত্যার ঘটনার কোনও সম্পর্কই নেই। প্রধানমন্ত্রী তাঁর টু্যইটার অ্যাকাউন্ট ফলো করেন বলেই তাঁকে আক্রমণ করা হচ্ছে বলেও দাবি করেন তিনি।
এই দাবি করলেও নিখিল দধিচের টু্যইটার টাইমলাইন কিন্তু অন্য কথা বলছে। বিতর্কিত টু্যইট ডিলিট করার আগে ও পরে তাঁর টাইমলাইনে এই ইসু্যতেই একাধিক টু্যইট রয়েছে। এমন এক ব্যক্তির টু্যইটার অ্যাকাউন্ট ফলো করায় সোশাল মিডিয়ায় প্রধানমন্ত্রী মোদিরও তীব্র সমালোচনা শুরু হয়েছে।
শুধু প্রধানমন্ত্রীর সমালোচনাই নয়। কেউ কেউ প্রধানমন্ত্রী মোদির অ্যাকাউন্ট ব্লক করছেন এবং তার স্ক্রিনশট শেয়ার করছেন।