মঙ্গলবার, ৫ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

মিয়ানমারের এই জাতিগত নিধন আঞ্চলিক অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করবেঃ জাতিসংঘ

News Sundarban.com :
সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৭
news-image

রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে প্রস্তাব পাস ঠেকাতে ঘনিষ্ঠ মিত্র চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছে মিয়ানমার। দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা থাউং তুনের বরাত দিয়ে বুধবার বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ কথা জানিয়েছে।
সাম্প্রতিক ক্লিয়ারেন্স অপারেশনের লক্ষ্যে রাখাইন রাজ্যে সেনা মোতায়েন শুরুর কয়েকদিনের মাথায় গত ২৪ আগস্ট ২৪টি পুলিশ চেকপোস্টে বিদ্রোহী রোহিঙ্গাদের ওপর সমন্বিত হামলা এবং রাতভর সংঘর্ষে বিদ্রোহী-পুলিশ-সেনাসদস্য মিলে অন্তত ১০৪ জন নিহত হয়েছে বলে জানায় সেনাসূত্র। হামলার পর থেকে রোহিঙ্গাবিরোধী অভিযান জোরদার হয়। আর অভিযান জোরদারের পর বাংলাদেশের সীমান্তে জোরালো হয় রোহিঙ্গা-স্রোত।

মঙ্গলবার জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্টনিও গুতেরেস নিরাপত্তা পরিষদের কাছে লেখা চিঠিতে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন, এ সহিংসতা ‘মানবিক বিপর্যয় সৃষ্টি করবে।’ তিনি সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, মিয়ানমারের এই জাতিগত নিধন আঞ্চলিক অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করবে।

মিয়ানমারের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা থাউং তুন রাজধানী নাইপিদুতে সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘে কোনো প্রস্তাব পাসের চেষ্টা হলে নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য দেশ চীন ও রাশিয়া যাতে এটি আটকে দেয় সেজন্য তারা কাজ করছেন।

নিরাপত্তা উপদেষ্টা থাউং তুন রয়টার্সকে বলেন, নিরাপত্তা পরিষদে বিষয়টি যাতে না ওঠে সেজন্য আমরা বন্ধুভাবাপন্ন কয়েকটি দেশের সঙ্গে আলোচনা করছি। চীন আমাদের বন্ধু এবং রাশিয়ার সঙ্গেও আমাদের একই ধরনের বন্ধুভাবাপন্ন সম্পর্ক রয়েছে। তাই ইস্যুটির সামনে না যাওয়াটা অসম্ভব নয়।