বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

কিডনি পেয়ে প্রাণে বেঁচেছে ১৫ বছর বয়সী এক কিশোর

News Sundarban.com :
সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৭
news-image

চোদ্দ মাস মাত্র বয়স। তার মধ্যেই মৃতু্য হয়েছে সোমনাথ শাহ-র। তবে সে বেঁচে আছে অন্যের মধ্য দিয়ে। তার হৃদপিণ্ড ধুকপুক করছে তিনবছর বয়সী এক শিশুকন্যার বুকে। পাশাপাশি তার কিডনি পেয়ে প্রাণে বেঁচেছে ১৫ বছর বয়সী এক কিশোর। এই অঙ্গদান করেই সোমনাথ হয়ে উঠেছে পশ্চিম ভারতের সবচেয়ে নবীন অঙ্গদাতা। এমনটাই জানিয়েছেন চিকিত্সকেরা। সোমনাথের হৃদপিণ্ড নভি মুম্বইয়ের তিন বছরের আরাধ্যা যোগেশ মুলের দেহে বসানো হয়েছে।
সূত্রের খবর, আরাধ্যা এক বিরল হৃদপিণ্ডের অসুখে ভুগছিল। প্রতিস্থাপনের জন্য ছোট হৃদপিণ্ড পেতে বেশ সমস্যায় পড়েছিলেন চিকিত্সকেরা। তবে সুরাতের বাসিন্দা সোমনাথের হৃদপিণ্ড তার প্রাণ বাঁচিয়েছে। চিকিত্সকেরা জানিয়েছেন, গত ছয়মাস ধরে আরাধ্যার জীবন বাঁচাতে প্রচার চলেছিল। অবশেষে ছয়মাস পরে গিয়ে সঠিক মাপের হৃদপিণ্ডের খোঁজ মিলল। প্রতিস্থাপন সফল হয়েছে। এখন আরাধ্যা সুস্থ জীবনযাপন করতে পারবে। গত ২ সেপ্টেম্বর সুরাতে নিজের বাড়িতে খেলতে গিয়ে মই থেকে পড়ে যায় ছোট্ট সোমনাথ। মাথায় গুরুতর আঘাত লাগে। চিকিত্সকেরা জানান, ব্রেন হ্যামারেজ হয়েছে। ৪ সেপ্টেম্বর তাকে ব্রেন ডেড ঘোষণা করা হয়। তারপরই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সোমনাথের বাবা সুনীল শাহকে বুঝিয়ে রাজি করে। সুনীল শাহ জানান, এভাবে ছেলে ছেড়ে চলে যাবে বুঝিনি। তবে ও এখন আরাধ্যার মধ্যে বেঁচে থাকবে। শেষকৃত্য সম্পন্ন হলেই তাঁরা মুম্বই গিয়ে আরাধ্যার সঙ্গে দেখা করে আসবেন। এদিকে সোমনাথের কিডনিতে গুজরাতের বানসকাঁথা জেলার এক কিশোর প্রাণে বেঁচেছে। গত দশ বছর ধরে সে কিডনির সমস্যায় ভুগছিল।